Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

মেসিকে ‘গোল্ডেন বল’ দেয়া বড় ভুল , সেপ ব্লেটার

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

২০১৪ সালের বিশ্বকাপে লিওনেল মেসি ‘গোল্ডেন-বল’ পেয়েছিলেন । যদিও সেটা ছিল ভুল , বলেছেন ফিফার তৎকালীন সভাপতি সেপ ব্লেটার ।

২০১৪ সালের বিশ্বকাপ ফাইনালে আর্জেন্টিনা হেরেছিল জার্মানির কাছে । পুরো আসরে গ্রুপ পর্ব বাদে মেসি ছিলেন নিজের ছায়া হয়ে । কিন্তু সেই মেসিকে বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের ‘গোল্ডেন-বল’ দিয়ে সম্মানিত করা হয় । এই ফিফা সাবেক সভাপতি ব্লেটার জানান , ফিফা কমিটি ভুল করেছিল ।

‘এএস’ রিপোর্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সেপ ব্লেটার জানান , ‘ আমাকে যদি জিজ্ঞেস করেন , আমি সত্যি অবাক হয়েছিলাম । মেসি গোল্ডেন-বল পাবে এটা ভাবনায় ছিল না । ‘

২০১৪ সালের বিশ্বকাপ মেসির কাছে গোল্ডেন বল লড়াইয়ে হেরে যান হল্যান্ডের আরিয়েন রোবেন আর থমাস মুলার ।

সেপ ব্লেটার বলেছেন , ‘ মেসিকে ২০১৪ সালের গোল্ডেন বল দেয়ার ক্ষেত্রে ফিফা কমিটি রহস্যজনকভাবে ভুল করেছিল । ‘

আসলে ফিফা কোন ভুল করেনি । বরং লিওনেল মেসিকে ক্যারিয়ার জুড়ে এমন প্রতারণামুলক পুরস্কার দিয়ে ফুটবলের ‘নকল রাজা’ বানাবার চেষ্টা করা হয়েছে । ২০১৯ সালে মেসিকে দেয়া ফিফা এ্যাওয়ার্ডে চুরির অভিযোগ এসেছে সরাসরি । মিশরের অধিনায়ক আহমেদ এল মোহামাদি , সুদানের কোচ দ্রাভকো লুগারিসিচ , নিকারাগুয়ার দলের অধিনায়ক হুয়ান বারেরা , মিশরীয় কোচ সাকি ঘারিব অভিযোগ করেন ফিফা বর্ষসেরায় তারা কেউই মেসিকে ভোট দেন নি । কিন্তু তাদের ভোট দেখানো হয়েছে মেসিকে ।

২০২১ সালে মেসিকে ব্যালন দেয়া ছিল আরও লজ্জার । অথচ সেই মৌসুমে রবার্ট লেভেন্ডস্কি ছিলেন দুর্দান্ত । ৪১ গোল করে ভেঙেছেন বুন্দেসলিগায় এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের কিংবদন্তি গার্ড মুলারের ৪৯ বছরের রেকর্ড। ব্যালনের হিসেব পর্যন্ত করেছিলেন বায়ার্নের হয়ে ২০ ম্যাচ খেলে করেছেন ২৫ গোল ।

অন্যদিকে একই মৌসুমে ক্লাব ফুটবলে তেমন কিছুই জিততে পারেননি মেসি । বার্সেলোনার জার্সিতে ভুলে যাওয়ার মতো একটি মৌসুমই কাটিয়েছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। পরবর্তীতে পিএসজিতে নাম লেখালেও চোট–টোট মিলিয়ে অনেকটা সময়ই ছিলেন মাঠের বাইরে। তবে আর্জেন্টিনার হয়ে কাটিয়েছেন শিরোপা–খরা। প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের হয়ে জিতেছেন বড় কোনো শিরোপা , কোপা আমেরিকা । মেসি নিজেও মনে করেন, আর্জেন্টিনার হয়ে ২০২১ কোপা আমেরিকা জয়ই তাঁকে এনে দিয়েছে ক্যারিয়ারের সপ্তম ব্যালন ডি’অর।

শুধুমাত্র কোপার মতো একটি টুর্নামেন্ট জয়ে মেসির হাতে ব্যালন তুলে দেয়ার প্রতিবাদ করেছে জার্মানসহ নানা দেশের ফুটবল বিশেষজ্ঞ । তারা প্রকাশ্যেই সমালোচনা করেছেন মেসিকে ব্যালন দেয়ার হাস্যকর সিদ্ধান্তের । ১৯৯০ সালে জার্মানির বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক লোথার ম্যাথিউজ বলেছিলেন , ‘ লিওনেল মেসি এবং মনোনীত বাকি সব খেলোয়াড়ের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, লেভানডফস্কির চেয়ে বড় দাবিদার আর কেউই নয়। ফ্রান্স ফুটবল গত বছর পুরস্কারটি দেয়নি। তবে শুধু শিরোপার হিসাব করা হলেও ২০২০ সালে লেভানডফস্কি ব্যালন ডি’অর জয়ে ছিল অপ্রতিদ্বন্দ্বী।’

ম্যাথিউজ বলেছিলেন , ‘ ‘এমনকি শুধু ২০২১ সালকেও যদি বিবেচনায় নেওয়া হয়, তাহলেও বাকিদের চেয়ে এগিয়ে সে। সে গার্ড মুলারের রেকর্ড ভেঙেছে। সব ধরনের প্রতিযোগিতারই সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় আছে সে। জাতীয় আর আন্তর্জাতিকভাবে বাকি সবাইকে সে পেছনে ফেলেছে।’

আহাস/ক্রী/০০৮