Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

আর্জেন্টিনার ক্লাবে ডাক পেলেন দুই বাংলাদেশী ফুটবলার

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

আগামী জুনে বাংলাদেশে খেলতে আসছে আর্জেন্টিনা । বিশ্বকাপ জয়ের পর লিওনেল মেসিদের আসার খবরে দারুণ উত্তেজিত বাংলাদেশের আর্জেন্টিনা ভক্তরা । তবে শুধু আর্জেন্টিনা দলই বাংলাদেশে আসছে না , বাংলাদেশ থেকেও আর্জেন্টিনায় খেলতে যাওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে অন্তত দুই ফুটবলারের ।

হ্যাঁ , বাংলাদেশের দুই ফুটবলার তপু বর্মণ আর মাহদুদুল হাসান কিরণকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে আর্জেন্টিনার লীগে খেলার । তাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে সোল ডে মায়ো নামের একটি ক্লাব । যারা আর্জেন্টিনার তৃতীয় বিভাগের টরেনো রিজিওনাল ফেডারেল অ্যামেচার লীগে খেলে ।

বাংলাদেশের ঘরোয়া লীগে অনেকদিন থেকেই ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা । হার্নান বার্কোস তো সুযোগ পেয়েছিলেন আর্জেন্টিনার জাতীয় দলেই । তিনি নিজ দেশের রেসিং আর ব্রাজিলের পালমেইরাসের মতো দলে খেলেছেন । তিনি বাংলাদেশ খেলে গেছেন বসুন্ধরা কিংসে । এছাড়া ডরিয়েলটন গোমেজ ব্রাজিলের ফ্লুমিনেস ক্লাবের অংশ ছিলেন । বাংলাদেশের আবাহনী হয়ে তিনিও এখন বসুন্ধরায় ।

বার্কোস কিংবা গোমেজ অনেক উঁচুমানের খেলোয়াড় । তারা খেলেছেন নিজ নিজ দেশের শীর্ষ লীগে । তবে অন্য অনেক ল্যাটিন খেলোয়াড় বাংলাদেশ আসছেন যারা নিজ দেশের তৃতীয় ও দ্বিতীয় বিভাগ স্তরে খেলেন । আসলে , বাংলাদেশের ফুটবলের ম্যান অনুযায়ী ব্রাজিল কিংবা আর্জেন্টিনার দ্বিতীয়/তৃতীয় বিভাগ মানগত দিক দিকে একই ।

সোল ডে মায়ো ক্লাবে ডাক পাওয়া সম্পর্কে তপু বর্মন জানিয়েছেন , ‘ আমাকে ডিসেম্বরে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে । এখন সেখানে প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতি চলছে । আগামী মার্চে লীগ শুরু হবে’ ।

তৃতীয় বিভাগের ক্লাব সম্পর্কে তপু জানান , ‘আমাদের এখানে যেসব ব্রাজিলিয়ান ও আর্জেন্টাইন আসেন তারা মূলত তৃতীয় ও দ্বিতীয় বিভাগ স্তরেই। কিংসে হার্নান বার্কোস অবশ্য ছিলেন উঁচু স্তরের। তাদের তৃতীয় বিভাগ লিগ আমাদের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।’

বাংলাদেশের চেয়ে পারিশ্রমিক আর্জেন্টিনায় বেশী । তৃতীয় বিভাগে খেলেও মাসে ১২-১৩ হাজার ডলার পাওয়া যেতে পারে বলে জানিয়েছেন তপু ।

তবে আর্জেন্টিনায় তপুরা খেলতে যাবেন কিনা সেটা এখনও নিশ্চিত না । কারণ তপু, কিরণ বসুন্ধরার সাথে চুক্তিবদ্ধ । এই মুহূর্তে দেশের ঘরোয়া ফুটবল চলছে । তাদের বসুন্ধরা যেতে দেবে কিনা সেটা অনিশ্চিত । বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসানের সঙ্গে দুই এক দিনের মধ্যেই বৈঠকে বসবেন তপু। আর্জেন্টিনার ক্লাবকে এক সপ্তাহের মধ্যেই তার অবস্থান জানিয়ে দেবেন।

এদিকে , কিরণ বিগত মৌসুমে রহমতগঞ্জের অধিনায়কত্ব করলেও বর্তমানে আছেন বসুন্ধরায় । যদিও সেভাবে মাঠে নামার সুযোগ হয় নি তার ।

বাংলাদেশ থেকে কাজী সালাহউদ্দিন সর্বপ্রথম বিদেশের লীগে খেলতে গিয়েছিলেন । হংকংয়ের একটি ক্লাবে খেলেছিলেন তিনি । এছাড়া প্রয়াত মোনেম মুন্না , কায়সার হামিদ , সাব্বিররা খেলেছেন ভারতের লীগে । সর্বশেষ বাংলাদেশের জামাল ভুঁইয়া খেলেছেন কলকাতা মোহামেডানে । তবে এখন পর্যন্ত এশিয়ার বাইরে কিংবা ল্যাটিনের কোন লীগে খেলার সুযোগ বাংলাদেশের কোন ফুটবলারের হয় নি । এই ক্ষেত্রে প্রবাসে জন্ম নেয়া বাংলাদেশের ফুটবলারদের বিষয়টা অবশ্য আলাদা ।

আহাস/ক্রী/০০১