Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

শেষ রাউন্ডে হেভিওয়েটদের মেলাতে হবে জটিল সমীকরণ

আহসান হাবীব সুমন: 

কাতারে চলমান বিশ্বকাপের প্রতিটা গ্রুপের দুইটি করে ম্যাচ শেষ । ইতোমধ্যে ব্রাজিল , ফ্রান্স আর পর্তুগালের মতো ফেভারিট দল নিশ্চিত করেছে নক আউট পর্বের খেলা । তবে ঝুলে আছে আর্জেন্টিনা , স্পেন আর জার্মানিসহ অন্যদের ভাগ্য ।

‘এ’ গ্রুপ থেকে টানা দুই হারে বিদায় ঘটেছে স্বাগতিক কাতারের । ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার পর দ্বিতীয় স্বাগতিক হিসেবে কাতার বিদায় নিলো গ্রুপপর্ব থেকেই । গ্রুপে হল্যান্ড আর ইকুয়েডর চার পয়েন্ট নিয়ে অপেক্ষা করছে নক আউটের টিকেট কাটার । তিন পয়েন্ট পাওয়া সেনেগালও রয়েছে সম্ভাবনায় । শেষ ম্যাচে ইকুয়েডরের বিপক্ষে জিততেই হবে সেনেগালকে । অন্যদিকে , কাতারের বিপক্ষে হল্যান্ড আর সেনেগালের বিপক্ষে ইকুয়েডর ড্র করলেই উঠে যাবে সেরা ষোল পর্বে ।

‘বি’ গ্রুপে ইংল্যান্ড , ইরান আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাগ্য নিজেদের হাতেই রয়েছে । ৪ পয়েন্ট পাওয়া ইংল্যান্ড শেষ ম্যাচে ১ পয়েন্ট পাওয়া ওয়েলসের বিপক্ষে ড্র করলেও পাবে নক আউটের টিকেট । অন্যদিকে , ৩ পয়েন্ট নিয়ে ইরান মুখোমুখি হচ্ছে ২ পয়েন্ট পাওয়া মার্কিনীদের । এই ম্যাচ যে জিতবে সেই সঙ্গী হবে ইংল্যান্ডের । ড্র হলেও ইরানের সম্ভাবনা থাকবে । তবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়েলস যাতে না জিততে পারে , সেই আশায় থাকতে হবে তাদের ।

‘সি’ গ্রুপের পরিস্থিতি বেশ জটিল। গ্রুপের শীর্ষে থাকা পোল্যান্ডের পয়েন্ট ৪ । আর্জেন্টিনা আর সৌদি আরবের ৩ । এছাড়া মেক্সিকো পেয়েছে দুই ম্যাচে ১ পয়েন্ট । শেষ ম্যাচে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ড্র করলেও পোল্যান্ড উঠে যাচ্ছে নক আউট পর্বে । কিন্তু ঝুলে থাকবে আর্জেন্টিনার ভাগ্য । সৌদি আরব বনাম মেক্সিকো ম্যাচের ফলাফলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে তাদের । আর্জেন্টিনা জিততে না পারলে আর সৌদি আরব জিতে গেলে এই গ্রুপ থেকে সেরা ষোল নিশ্চিত হবে পোল্যান্ড আর সৌদির । অর্থাৎ শেষ ম্যাচে আর্জেন্টিনার সামনে জয় ছাড়া কোন পথ নেই । কারণ সৌদি আর মেক্সিকো ড্র হলে কিংবা মেক্সিকো জিতলে কমপক্ষে দুইটি দলের পয়েন্ট সমান হয়ে যাচ্ছে । সেই ক্ষেত্রে গোল ব্যবধানে নির্ধারিত হবে নক আউট ভাগ্য । আরেক সমীকরণ বলছে , আর্জেন্টিনা আর সৌদি আরব নিজ নিজ ম্যাচ জিতলে বাদ পড়বে পোল্যান্ড আর মেক্সিকো ।

‘ডি’ গ্রুপ থেকে টানা দুই জয় নিয়ে ফ্রান্স নিশ্চিত করেছে নক আউট পর্বের খেলা । তাদের শেষ ম্যাচ ১ পয়েন্ট পাওয়া তিউনিশিয়ার বিপক্ষে । পরবর্তী রাউন্ডে খেলার আশা টিকিয়ে রাখতে তিউনিশিয়াকে জিততেই হবে । অন্যদিকে , ৩ পয়েন্ট পাওয়া অস্ট্রেলিয়া ডেনমার্কের বিপক্ষে ড্র করলেও উঠে যাবে পরবর্তী রাউন্ডে , যদি না ফ্রান্স হেরে যায় । ১ পয়েন্ট পাওয়া ডেনমার্কের সামনেও সুযোগ আছে । প্রথমত তাদের হারাতে হবে অস্ট্রেলিয়াকে আর কামনা করতে হবে ফ্রান্সের অপরাজেয় ধারা বজায় থাকার । ধরা যাক , ফ্রান্স হেরে গেল আর অস্ট্রেলিয়া কিংবা ডেনমার্ক জিতে গেল ; সেই ক্ষেত্রে কমপক্ষে দুই দলের পয়েন্ট হবে চার । তখন নক আউট পর্বের দ্বিতীয় দল নির্ধারিত হবে গোল ব্যবধানের হিসেবে ।

‘ই’ গ্রুপে চার পয়েন্ট নিয়ে স্পেন আছে সুবিধাজনক অবস্থায়। শেষ ম্যাচে জাপানের বিপক্ষে না হারলেই ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়নরা পা রাখবে নক আউটে । গ্রুপের অন্য দুই দল জাপান আর কোস্টারিকার ঝুলিতে আছে তিনটি করে পয়েন্ট । এই দুই দল নিজেদের শেষ ম্যাচ জিতলে উঠে যাচ্ছে পরবর্তী রাউন্ডে । সেই ক্ষেত্রে বাদ পড়বে স্পেন আর জার্মানির মতো দুই সাবেক চ্যাম্পিয়ন । ১ পয়েন্ট পাওয়া জার্মানি আছে বেকায়দায় । শেষ ম্যাচে কোস্টারিকার বিপক্ষে জয় ছাড়াও তাদের কামনায় থাকবে জাপানের হার । চারবারের চ্যাম্পিয়নরা জিতলে আর জাপান ড্র করলে কিংবা জিতলে চলে আসবে গোলের হিসেব ।

‘এফ’ গ্রুপেও অপেক্ষা করছে জটিল সমীকরণ । চার পয়েন্ট করে পাওয়া ক্রোয়েশিয়া আর মরক্কো নিজেদের খেলায় ড্র করলেও বাদ পড়বে বেলজিয়াম ।৩ পয়েন্ট পাওয়া বেলজিয়ামের শেষ ম্যাচ আবার ২০১৮ সালের ফাইনালিস্ট ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে । এই ম্যাচে জয় ছাড়া বেলজিয়ামের নক আউটের পর্বে খেলার সরাসরি কোন উপায় নেই । হারলে তো কথাই নেই , ড্র করলেও তাদের অপেক্ষা থাকবে মরক্কোর পরাজয়ের । তেমন হলে ক্রোয়েশিয়া আর মরক্কোর মধ্যে একটি দল বাদ পড়বে । টানা দুই ম্যাচ হারা ক্যানাডার চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই ।

‘জি’ গ্রুপ থেকে সার্বিয়া আর সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে নক আউট পর্বে উঠে গেছে ব্রাজিল । বিশ্বকাপের সর্বাধিক পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা শেষ ম্যাচে ক্যামেরুনের কাছে হেরে গেলেও সমস্যা নেই । তবে তাতে সম্ভাবনা জাগবে ১ পয়েন্ট পাওয়া ক্যামেরুনের । গ্রুপে তিন পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে সুইজারল্যান্ড । শেষ ম্যাচে সার্বিয়ার কাছে না হারলে আর ক্যামেরুন ব্রাজিলের বিপক্ষে ড্র করলেও সুইসরাই খেলবে নক আউট । ১ পয়েন্ট করে পাওয়া সার্বিয়া আর ক্যামেরুনের সামনে শেষ ম্যাচে জয় ছাড়া অন্য কোন পথ নেই ।

‘এইচ’ গ্রুপে টানা দুই ম্যাচে ঘানা আর উরুগুয়ের বিপক্ষে জয় পেয়েছে পর্তুগাল । তারাও উঠে গেছে নক আউটে । দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে ঘানাও আছে সুবিধাজনক অবস্থায় । শেষ ম্যাচে তারা উরুগুয়ের বিপক্ষে ড্র করলে আর দক্ষিণ কোরিয়া পর্তুগালের বিপক্ষে জয় না পেলে তারাই উঠে যাচ্ছে নক আউট পর্বে । কিন্তু যদি পর্তুগাল হেরে যায় ১ পয়েন্ট পাওয়া দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে তবেই হয়ে যাবে ঝামেলা । তাতে ঘানা আর উরুগুয়ের ম্যাচের জয়ী দলের সাথে দক্ষিণ কোরিয়ার গোল ব্যবধান হিসেবে চলে আসবে ।

২২তম ফিফা বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের শেষ রাউন্ডে অনেক চমক থাকছে , সন্দেহ নেই । মাত্র তিনটি দল এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করেছে নক আউট পর্ব । লড়াই থেকে সম্পূর্ণ ছিটকে গেছে কাতার আর ক্যানাডা । বাকী ২৭টি দলের সামনেই আছে কোন না কোনভাবে সমীকরণ মিলিয়ে পরবর্তী রাউন্ডে খেলার । এই পরিস্থিতিতে ফুটবল ভক্তদের জন্য থাকছে শেষ ম্যাচগুলো তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করার সুযোগ ।

প্রথম দুই রাউন্ডের ৩২ ম্যাচে গোল হয়েছে ২.৫৩ গড়ে ৮১টি । সবচেয়ে বেশী তিনটি করে গোল পেয়েছেন ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপ্পে আর ইকুয়েডরের এনার ভ্যালেন্সিয়া । দুইটি করে গোল পেয়েছেন লিওনেল মেসি , অলিভার জিরুদ , রিচার্লিশন , ব্রুনো ফার্নান্দেজসহ আরও ১০ জন ।

আহাস/০০১