Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

কাতার বিশ্বকাপ হবে সিনিয়র সিটিজেনদের

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

১৯৯০ সালের ইটালি বিশ্বকাপ । শিরোপা জিতে নিলো জার্মানি । সেরা খেলোয়াড়ের ‘গোল্ডেন বল’ জিতলেন জার্মান অধিনায়ক লোথার ম্যাথিউজ । সেরা গোলদাতা হলেন ইটালির সালভাতোর শিলাচ্চি । কিন্তু সবার মন জয় করলেন একজন রজার মিল্লা । ৩৮ বছর বয়সে বিশ্বকাপের মুল মঞ্চে চার গোল এবং গোলের পর কর্নার-ফ্ল্যাগের সামনে দৌড়ে গিয়ে তাঁর বিচিত্র নাচ , আজও ভুলতে পারেনি দর্শকরা । বয়সকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেয়া ক্যামেরুনের মিলা ১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপেও গোল করেছিলেন । তখন তাঁর বয়স মাত্র ৪২ বছর !

শারীরিক সামর্থ্যের খেলা হিসেবে ফুটবলে ৩৫ পেরিয়ে যাওয়া খেলোয়াড়দের ‘বুড়ো’ হিসেবেই গণ্য কড়া হয় । কিন্তু ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরেই ৪৫ বছর ১৬১ দিনে খেলার রেকর্ড আছে মিশরের গোলরক্ষক এসাম এল-হাদারির । তিনিই এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপ ফুটবলে সবচেয়ে বেশী বয়সে মাঠে নামার রেকর্ডের অধিকারী । ২০১৮ সালে গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে মাঠে নেমে এই রেকর্ড গড়েন তিনি । মজার ব্যাপার হচ্ছে , বিশ্বকাপে হাদারির সেটাই প্রথম আর শেষ ম্যাচ ।

কাতার বিশ্বকাপেও ৩৫ পেরিয়ে যাওয়া অনেক ফুটবলারকে দেখা যাবে মাঠে লড়াই করতে । যারা হয়ত শেষবারের মতো ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরে নিজেদের দেশকে প্রতিনিধিত্ব করতে চলেছেন । যাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী বয়সের খেলোয়াড় মেক্সিকোর আলফার্ডো তালাভেরা । তাঁর বর্তমান বয়স ৪০ বছর । মেক্সিকোর দ্বিতীয় গোলরক্ষক হয়েও খেলেছেন ৪০টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ । কিন্তু গুলের্মো ওচোয়ার কারণে একাদশে নিয়মিত নন ।

৩৯ বছর পেরিয়ে এসেও নিজ দেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াডে আছেন ক্যানাডার আতিবা হাচিনসন , পর্তুগালের পেপে , ব্রাজিলের ড্যানি আলাভেজ , জাপানের এইজি কাশিমা , হল্যান্ডের রেমকো পাসভির । ৩৮ পেরিয়ে এসেছেন তিউনিশিয়ার আইমেন মাথলাউথি আর ব্রাজিলের থিয়াগো সিলভা ।

৩৭ বছর পেরিয়ে বিশ্বকাপ মাতাতে তৈরি বিশ্বসেরা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো । সাথে আছেন প্রায় সমবয়সী লুকা মদ্রিচ , অস্ট্রেলিয়ার ড্যানি ভুকোভিচ , ফ্রান্সের স্টিভ মান্দান্দা , মেক্সিকোর কিপার ওচোয়া আর কোস্টারিকার ব্রায়ান রুইজ ।

কাতার বিশ্বকাপে সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে স্কোয়াডে ডাক পেয়েছেন ইউসুফা মুকোকো । জার্মানির হয়ে মাত্র একটি ম্যাচ খেলেছেন ১৮ বছরের এই ফরোয়ার্ড । জামাল মুসিয়ালার পর জার্মানির সবচেয়ে সম্ভাবনাময় উদীয়মান তারকা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে তাঁকে । বুরুশিয়ার হয়ে ২০২২-২৩ মৌসুমের বুন্দেস লিগায় ১২ ম্যাচেই ৬ গোল করেছেন । সাথে আছে তিনটি এসিস্ট । টিমো ভার্নারের ইনজুরিতে হ্যান্সি ফ্লিক তাঁকে স্কোয়াডে রেখেছেন । জার্মানির বিশ্বকাপ  দলে মাত্র ১৮ বছর  বয়সে সুযোগ পাওয়াই প্রমাণ করে তাঁর প্রতিভা । 

আহাস/ক্রী/০০২