Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াড প্রস্তুত!

আহসান হাবীব সুমন/ক্রীড়ালোকঃ

চরম ব্যর্থতার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে বাংলাদেশের এশিয়া কাপ মিশন । সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বের বাঁধাই পেরুতে পারে নি বাংলাদেশ । হেরেছে আফগানিস্তান আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে । তারচেয়ে বড় কথা , দুইটি ম্যাচেই ব্যাটে-বলে হতাশ করেছেন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত খেলোয়াড়রা ।

এশিয়া কাপের ব্যর্থ মিশন শেষে বাংলাদেশের পারফর্মেন্স নিয়ে চলছে পর্যালোচনা আর বিশ্লেষণ । আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে আইসিসি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ । হাতে খুব বেশী নেই । বিশ্বকাপের আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ । যেখানে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড আর পাকিস্তান । আগামী ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে এই টুর্নামেন্ট । শেষ বিশ্বকাপের ঠিক আগে , ১৪ অক্টোবর ফাইনালের মধ্য দিয়ে । এই টুর্নামেন্ট তিনটি দেশের জন্যই হবে বিশ্বকাপের শেষ প্রস্তুতি ।

এশিয়া কাপে অনেকটা বাধ্য হয়েই বাংলাদেশ দল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হয়েছিল । কারণ ইনজুরির কারণে একাধিক নিয়মিত ক্রিকেটারকে এশিয়া কাপে পায় নি বাংলাদেশ । তবে বিশ্বকাপের আগে তারা সম্পূর্ণ ফিট থাকবেন , আশা করা যায় । আর তাছাড়া বিশ্বকাপের মতো আসরে সেই সুযোগ নেই । এমনকি , ওয়ার্ম আপ হিসেবে ত্রিদেশীয় আসরেও খেলানো হবে বিশ্বকাপের স্কোয়াড । এমনটা নিশ্চিত করেছেন নির্বাচক হাবিবুল বাশার । বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক জানিয়েছেন , ‘বিশ্বকাপের আগে ত্রিদেশীয় সিরিজে সম্ভাব্য সেরা দলটা খেলবে। বিশ্বকাপে যারা খেলতে যাবে তাদেরকেই দলে রাখা হবে।’

যদিও কিছুদিন আগেই টি-টুয়েন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন তামিম ইকবাল । এশিয়া কাপের পর একই পথে হাঁটার ঘোষণা দিয়ে সরে গেছেন মুশফিকুর রহিম । তাদের ছাড়াই বিশ্বকাপে খেলতে হবে বাংলাদেশকে । মুশফিকের বিকল্প হিসেবে সোহান থাকলেও তামিমের জায়গা নেবার মতো কাউকে এখনও পায় নি টাইগাররা । যে কারণে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে লিটনের সঙ্গী হিসেবে কা’কে খেলানো হবে এই চিন্তায় মাথার চুল ছেঁড়ার অবস্থা নির্বাচকদের ।

এশিয়া কাপের আগে বাংলাদেশের টি-টুয়েন্টি কোচের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে রাসেল ডোমিঙ্গোকে । তার জায়গায় দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে যোগ দিয়েছেন শ্রীধরণ শ্রীরাম । আপিএলে রাজস্থান রয়ালস আর অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের সাথে কাজ করে শ্রীরামকে বলা হয় ‘টি-টুয়েন্টি বিশেষজ্ঞ’ । বাংলাদেশ দলের টি-টুয়েন্টি মানসিকতা গড়ে তোলার দায়িত্ব এখন তার । যদিও দলে ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স , বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ড আর স্পিন কোচ হিসেবে রঙ্গনা হেরাথ আছেন । কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত গ্রহণের মুল দায়িত্ব শ্রীরামের ।

এশিয়া কাপ ক্রিকেটের আগ মুহূর্তে নিয়োগ পাওয়া শ্রীরাম তেমন কিছু করার সুযোগ পান নি । তবে বিশ্বকাপের আগে তিনি পাচ্ছেন কিছুটা সময় । ইতোমধ্যে দলের খেলোয়াড়দের সমন্ধে একটা ধারণা হয়েছে তার । আসন্ন টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য স্কোয়াড গঠনে শ্রীরামের পরামর্শকে তাই গুরুত্ব দিচ্ছে বিসিবি ।

আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পাওয়া ১৬টি দেশের স্কোয়াড আইসিসিকে পাঠাতে হবে । ইতোমধ্যে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও নেদারল্যান্ডস দল ঘোষণা করেছে। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার মতো বাংলাদেশও অপেক্ষা করছে শেষ সময়ের জন্য। জানা গেছে , বিশ্বকাপের জন্য ১৫ জনের স্কোয়াড দেয়া হবে । যাদের মধ্যে ১২-১৩ জন্য প্রায় চূড়ান্ত । বাকীদের চূড়ান্ত করবেন শ্রীরাম । লিটন কুমার দাসের সঙ্গে নিয়মিত ওপেনার নাঈম শেখকে নেওয়া হবে কিনা- এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে নির্বাচকরা।

অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশন মাথায় রেখে একজন অলরাউন্ডারসহ পাঁচজন পেসার নেওয়া হতে পারে। বিশেষজ্ঞ স্পিনারও নিতে হবে অন্তত দু’জন। বাকি ৮ জন ব্যাটার। কিন্তু চিন্তা সেই ওপেনিং নিয়ে । ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে সিরিজ ও এশিয়া কাপ মিলিয়ে বাংলাদেশ দলে ওপেন করেছেন ৮ জন ব্যাটার- লিটন কুমার দাস, এনামুল হক বিজয়, মুনিম শাহরিয়ার, পারভেজ হোসেন ইমন, নাঈম শেখ, সাব্বির রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। এত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেও লিটনের সঙ্গী খুঁজে পাওয়া যায়নি। ব্যাটিংয়ের জন্য যেটা বড় খুঁত।

শ্রীরাম তাই বিশ্বকাপে হাঁটতে চাইছেন অন্যপথে । তিনি লিটন দাসকে খেলাতে চান চার নাম্বারে । কারণ লিটন দাস ‘পাওয়ার-প্লে’ ছাড়াও যে কোন পজিশনে খেলতে পারেন সহজাত শট । তাছাড়া মুশফিক সরে দাঁড়ানোয় এই পজিশনে একজন অভিজ্ঞ ব্যাটার দরকার হয়ে দাঁড়িয়েছে । সঙ্গত কারণেই অভিজ্ঞ ও নির্ভরযোগ্য লিটন দাসকে সেই পজিশনের জন্য যোগ্য ভাবা হচ্ছে। অবশ্য চার নম্বর পজিশনে সফলতা পাননি লিটন। নিজের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ৫৪ ম্যাচে এখন পর্যন্ত মাত্র দুবার চার নম্বরে ব্যাট করেছেন লিটন। সেই দুই ইনিংসে তার সংগ্রহ ছিল ৮ ও ৯ রান।

লিটন চার নাম্বারে খেললে ওপেন করবেন কে ? এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওপেনিং করতে নেমে মেহেদি হাসান মিরাজ ২৬ বলে করেছেন ৩৮ রান । এছাড়া চার বছর আগে এশিয়া কাপেই তামিমের অনুপস্থিতিতে মিরাজ ওপেনিং করতে নেমে করেছিলেন ৪২ রান । সেই ম্যাচে সাব্বির রহমান ওপেন করার সুযোগ পেয়েছিলেন । ১১ মাস পর টি-টোয়েন্টিতে প্রত্যাবর্তন ম্যাচে ওপেনিংয়ে নেমে থেমেছেন তিনি মাত্র ৫ রানে। আসিথা ফার্নান্ডোর শর্ট বলে পুল করতে যেয়ে উইকেটের পেছনে দিয়েছেন ক্যাচ।

বিশ্বকাপে মিরাজকে দিয়ে ওপেন করার পরিকল্পনা আছে নিশ্চিত । তবে তার সাথে কে জুটি বাঁধবেন , সেটা এখনও নিশ্চিত না । দলে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান , লিটন দাস , নুরুল হাসান সোহান , মোসাদ্দেক আলী সৈকত , আফিফ হোসেন ধ্রুব , মেহেদি হাসান মিরাজ , মোস্তাফিজুর রহমান , হাসান মাহমুদ , মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনদের থাকা নিশ্চিত । সুযোগ পাচ্ছেন ইদাবত হোসেন ।

সিনিয়রদের মধ্যে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সুযোগ পাওয়া খানিকটা সংশয়ের মধ্যে আছে । অবশ্য এশিয়া কাপের মতো বিশ্বকাপের দলেও মাহমুদউল্লাহকে দেখতে চান স্বয়ং অধিনায়ক সাকিব । এছাড়া বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নিজেও অভিজ্ঞতার বিচারে মাহমুদুল্লাহকে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে রাখার পক্ষে । তাই মাহমুদুল্লাহ আরও একবার দলে সুযোগ পাচ্ছেন , এটা বলাই যায় ।

জানা গেছে , ১৪ সেপ্টেম্বর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের টেবিলে বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের দল এবং পাঁচ স্ট্যান্ডবাই ক্রিকেটারের তালিকা পাঠাবে মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর নির্বাচক কমিটি। শ্রীরামের সবুজ-সংকেত মিললেই দেয়া হবে দল ।

বিশ্বকাপ দল গঠনের আগে সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে বাংলাদেশ দলের তিনদিনের অনুশীলন ক্যাম্প চলবে । যেখানে অনুশীলন ম্যাচের আদলে খেলোয়াড়দের পরীক্ষা করবেন শ্রীরাম । তাতে মাহমুদউল্লাহ, এনামুল হক, মোহাম্মদ নাঈমদের পাশাপাশি শ্রীরামের চোখ থাকবে লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেন, আমিনুল ইসলাম, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, রিপন মণ্ডলের মতো হাই পারফরম্যান্স দল এবং বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্রিকেটারদের দিকেও। এছাড়া সৌম্য সরকার থাকছেন ৩০ জনের অনুশীলন স্কোয়াডে । তাই শেষ মুহূর্তে তিনিও বিশ্বকাপ স্কোয়াডে চলে এলে অবাক হবার কিছু থাকবে না ।

আহাস/ক্রী/০০৪