Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

রিয়েল ইতিহাসের এক বর্ণময় চরিত্র মার্সেলো

আহসান হাবীব সুমন/ক্রীড়ালোকঃ

মার্সেলো ভিয়েরা । নাম শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে ঝাঁকড়া চুলের এক ফুটবলারের ছবি । যিনি নিজের সীমানা থেকে বিদ্যুৎ গতিতে ছুটে যেতে পারেন প্রতিপক্ষের বিপদসীমায় । বিপক্ষের আক্রমণ ঠেকিয়ে হয়ে উঠতে পারেন নিজ দলের আক্রমণের সূত্রধর । শুধু কি আক্রমণ গড়ে দেয়া ? দলের প্রয়োজনে মাঝেমাঝে গোল করে বসাও যে মার্সেলোর স্বভাব । আর এসব মিলিয়েই একজন মার্সেলো , যিনি দেড় যুগের বেশী সময় মাতিয়ে রেখেছেন ফুটবল দর্শকদের ।

মার্সেলো ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার । কিন্তু তারচেয়েও বেশী বুঝি একজন মাদ্রিদিস্তা । স্পেনের রিয়েল মাদ্রিদ এমনিতেই বিশ্বের সবচেয়ে নামী আর সফল ক্লাব । আর সর্বশেষ দেড় যুগে সেই মাদ্রিদের সাফল্য ছুঁয়েছে আকাশ । যেখানে সবচেয়ে বেশী অবদান রাখা খেলোয়াড়দের তালিকা করতে হলে চলে আসবে মার্সেলোর নাম । আসলে মার্সেলোকে এক হিসেবে ‘এক ক্লাবের ফুটবলার’ বললেও ভুল হবে না । নিজ দেশের ক্লাব ফ্লুমিন্সের বয়সভিত্তক দলের হয়ে খেলা শুরু করেন ২০০২ সালে । একই ক্লাবে মাত্র ২০০৫-০৬ মৌসুম খেলেছেন পেশাদার ফুটবল । এরপর ২০০৭ থেকে তাঁর ঠিকানা রিয়েল মাদ্রিদ ।

তবে সব শুরুর যেমন শেষ আছে , রিয়েলেও মার্সেলো অধ্যায়ের শেষ হয়েছে । ২০২১-২২ মৌসুম শেষ করে মাদ্রিদ ছাড়লেন ব্রাজিলিয়ান তারকা । অর্থাৎ ১৮ বছরের ক্যারিয়ারের দীর্ঘ ১৬টি বছর কাটিয়েছেন বার্নাব্যুতে তিনি । হয়েছেন ক্লাবের সবচেয়ে বেশী শিরোপাধারী খেলোয়াড় । মাদ্রিদের হয়ে তাঁর শিরোপার সংখ্যা ২৫টি । যেখানে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ শিরোপা আছে পাঁচটি । রিয়েলের হয়ে সবচেয়ে বেশী ছয়টি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয়ের রেকর্ড আছে কেবল পাকো জেন্তোর । তবে পাঁচটি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয়ের রেকর্ড আছে অনেকেরই ।

মাদ্রিদের হয়ে দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ৫৪৬ ম্যাচ খেলে ৩৮ গোল করেছেন মার্সেলো । নিজ সময়ের তো বটেই , তাকে ধরা হয় সর্বকালের অন্যতম সেরা লেফট-ব্যাক । যদিও তিনি লেফট-ব্যাক থেকে যে কোন মুহূর্তে লেফট উইঙ্গার হিসেবে নিজেকে মেলে ধরতে পিছ পা হন নি । আক্রমণাত্মক এই মেজাজের কারণেই অন্য অনেকের চেয়ে মার্সেলো ছিলেন আলাদা । যা দেখা গেছে পূর্বসূরি রবার্টো কার্লোসের মাঝে । কার্লোসের পর মার্সেলোর মাঝেই লেফট ব্যাক কাম উইঙ্গার খুঁজে পেয়েছে ব্রাজিল আর রিয়েল মাদ্রিদ । ব্রাজিল জাতীয় দলের হয়েও ৫৮ ম্যাচে ছয়টি আন্তর্জাতিক গোল আছে মার্সেলোর । ২০২২ বিশ্বকাপে সুযোগ পেলে ব্রাজিলের হয়ে শেষবারের মত দেখা যেতে পারে মার্সেলোকে ।

মার্সেলো রিয়েল মাদ্রিদ ছাড়ছেন , এই ঘোষণা তিনি নিজেই দিয়েছিলেন সর্বশেষ চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয়ের পর পর । আর গত শনিবার (১২ জুন) আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি ঘোষণা দেন রিয়েলে ক্যারিয়ার শেষের । যদিও তাঁর সেই বিদায় ছিল অশ্রু আর আবেগে ভারাক্রান্ত । বিদায় বেলায় তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান । তবে ক্যারিয়ারের শেষদিকে এসে জিনেদিন জিদান আর কার্লো আঞ্চেলত্তির শুরুর একাদশে নিয়মিত সুযোগ না পাওয়ার কষ্টটাও নিশ্চয়ই ছিল । প্যারিসে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে খেলতে না পারলেও ক্লাবের সদস্য হিসেবে নিজেকে গর্বিত মনে করছেন তিনি।

মার্সেলো জানান , ‘যখন আমি ব্রাজিল ছাড়লাম (২০০৭ সালে ফ্লুমিনেন্স এফসি), আমি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার স্বপ্ন দেখছিলাম। এবং আজ বিশ্বের অন্যতম বড় ক্লাবের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি শিরোপাধারী খেলোয়াড় হিসেবে চলে যাচ্ছি।’

মার্সেলোর বিদায়ে কষ্ট পেয়েছেন সাবেক সতীর্থ ক্রিশ্চিয়ান রোনালদো । যার সাথে এক সময় জুটি বেঁধে জিতেছেন চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ । রোনালদোর সাথে মার্সেলোর সম্পর্ক ছিল বন্ধুত্বের চেয়ে বেশী । ২০১৮ সালে রোনালদো যখন মাদ্রিদ ছাড়লেন । তখন শোনা গিয়েছিল মার্সেলোও চলে যাচ্ছেন রোনালদোর ক্লাবে । যদিও শেষ পর্যন্ত সেটা হয় নি ।

নয় মৌসুম টানা মার্সেলোর সাথে রিয়েলে কাটিয়েছেন । সেই স্মৃতিতে কাতর রোনালদো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া বার্তায় বলেন, ‘সতীর্থের চেয়েও বড় কিছু সে, ফুটবলে তার মাঝে আমি একটা ভাই পেয়েছি। মাঠ ও মাঠের বাইরে সেরা তারকাদের মধ্যে সে একজন, যার সঙ্গে ড্রেসিং রুম শেয়ার করা উপভোগ করেছি। নতুন রোমাঞ্চকর অভিযানে সবটুকু উপভোগ করো, মার্সেলো। ’

রিয়ালের সাবেক অধিনায়ক ইকার ক্যাসিলাস সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন, “তুমি ছোটবেলায় এসেছিলে। কতবার আমি চিৎকার করে বলেছিলাম ‘মার্সেলুওও, ফিরে এসো!’ এমন একজন কিংবদন্তি হওয়ার জন্য তোমাকে ধন্যবাদ। অনেক ধন্যবাদ, কিংবদন্তি। অনেক আলিঙ্গন বন্ধু এবং ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা।’

এছাড়া তরুণ ভিনিসিয়াস জুনিয়র জানিয়েছেন , ‘মার্সেলো! সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ! বিশ্বের সেরা ক্লাবে সবচেয়ে বেশি শিরোপাধারী খেলোয়াড় হিসেবে।’

আর টনি ক্রুস পোস্ট করেছেন, ‘আপনার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পেরে আমি আনন্দিত। আমি বলতে পারি সর্বকালের সেরা লেফট ব্যাকের সাথে খেলেছি।’

তবে আপাতত রিয়েল ছাড়লেও নতুন ঠিকানা কোথায় , সেটা জানান নি ৩৪ বছরের মার্সেলো । তবে তিনি এখনই ফুটবল ছাড়ছেন না , এটা নিশ্চিত করেছেন । আসন্ন মৌসুমের শুরুতেই ভিন্ন কোন ক্লাবে ফ্রি ট্রান্সফারে যোগ দেবেন আর চালিয়ে যাবেন ফুটবল – এমনটাই জানিয়েছেন রিয়েলে ইতিহাসের অন্যতন কারিগর ।

আহাস/ক্রী/০০৪