Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বিশ্বকাপ যাচ্ছে ল্যাটিন আমেরিকায় ?

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বিশ্বকাপ ফুটবলের শিরোপা জয়ের ক্ষেত্রে ইউরোপের চেয়ে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছে ল্যাটিন আমেরিকা । সবচেয়ে বড় কথা , ২০০২ সালে ব্রাজিলের পর আর কোন ল্যাটিন দেশ পায় নি বিশ্বকাপ শিরোপার স্বাদ । এখন পর্যন্ত ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলো জিতেছে নয়টি বিশ্বকাপ , যার মধ্যে পাঁচটি গেছে ব্রাজিলের ঘরে । আর দুইবার করে শিরোপা জিতেছে উরুগুয়ে আর আর্জেন্টিনা । অন্যদিকে ইউরোপের হয়ে ইতালি আর জার্মানি চারবার করে জিতেছে ফিফা বিশ্বকাপ । দুইবার জিতেছে ফ্রান্স । এছাড়া একবার করে বিশ্বকাপ শিরোপার নাগাল পেয়েছে ইংল্যান্ড এবং স্পেন ।

চলতি বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে অনুষ্ঠিত হবে ২২তম ফিফা বিশ্বকাপ । এই আসরে শিরোপা জিতবে কে ? এমন প্রশ্নে নানামুনির নানামত থাকলেও হট ফেভারিট হিসেবে চলে আসছে কয়েকটা নাম । তারা হচ্ছে – জার্মানি , আর্জেন্টিনা , ব্রাজিল , ফ্রান্স আর পর্তুগাল । হিসেবে আছে স্পেন আর হল্যান্ডও । ধারণা করা হচ্ছে , এই কয়েকটি দেশের যে কেউ কাতারে শেষ হাসি হাসার যোগ্যতা রাখে । তবে এশিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে কখনও শিরোপা জিততে পারে নি ইউরোপের কোন দেশ । অবশ্য এশিয়ার দেশ জাপান আর দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ আয়োজনে একবারই অনুষ্ঠিত হয়েছে বিশ্বকাপ ফুটবল । তাতে শিরোপা গেছে ব্রাজিলের ঘরে । বিশ্বকাপ ফুটবলে একমাত্র ব্রাজিলেরই ভিন্ন দুইটি মহাদেশ থেকে বিশ্বকাপ জয়ের রেকর্ড আছে ।

ভিন্ন মহাদেশে সাফল্যের ইতিহাস বিবেচনায় কাতারে বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী ব্রাজিলের । আর ব্রাজিল দলটাও আছে সাফল্যের মধ্যে । ল্যাটিন আমেরিকা থেকে শীর্ষদেশ হিসেবে সেলেকাওরা নাম লিখিয়েছে কাতারে । আবার ফিফা র‍্যাংকিংয়েও তারা এই মুহূর্তে এক নাম্বারে ।

কিছুদিন আগেই স্পেনের জাতীয় দলের কোচ লুইস এনরিকে বলেছেন , ‘ আমি দেখছি আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিল হচ্ছে বিশ্বকাপে অন্য দেশগুলোর ওপরে। অন্যদের চেয়ে অনেক ওপরে তাদের অবস্থান এখন। বিশ্বকাপেও তাদেরকে ফেবারিট দেখছি আমি।’

আর্জেন্টিনা ফিফা র‍্যাংকিংয়ে ক্রমশ উপরের দিকে উঠে আসছে । সর্বশেষ র‍্যাংকিংয়ে তাদের অবস্থান চতুর্থ । এক্ষেত্রে ব্রাজিল ছাড়া তাদের উপরে আছে কেবল ফ্রান্স আর বেলজিয়াম । তবে র‍্যাংকিং নয় , আর্জেন্টিনা এই মুহূর্তে সব দিক থেকেই বিশ্বের সবচেয়ে ধারাবাহিক দল । টানা ৩৩ ম্যাচে অপরাজিত আর্জেন্টিনা গত বছর জিতেছে কোপা আমেরিকা । এছাড়া ইউরোপের সাথে শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই ‘ লে ফিনালিসিমা’য় ইতালিকে উড়িয়ে দিয়েছে ৩-০ গোলে । সব মিলিয়ে অন্য যে কোন দলের চেয়ে আর্জেন্টিনাকে কাতার বিশ্বকাপে ফেভারিট মানছে ফুটবল বিশেষজ্ঞরা ।

এমনকি সম্প্রতি ব্রাজিলের এক টেলিভিশন জরিপে বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনায় সবচেয়ে এগিয়ে রাখা হয়েছে আর্জেন্টিনাকে । সেখানে আর্জেন্টিনার পর রাখা হয়েছে জার্মানি , ফ্রান্স আর ব্রাজিলের নাম । তবে ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী তারকা রবার্টো কার্লোস মনে করেন , কাতারে বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনায় সবচেয়ে এগিয়ে থাকবে তাঁর দেশ ।

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ব্রাজিল রীতিমতো অদম্যই ছিল। দক্ষিণ আমেরিকার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বটা পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকে শেষ করেছিল তিতের শিষ্যরা। ম্যাচ হারেনি একটিও। আর্জেন্টিনার চেয়ে ছয় পয়েন্ট এগিয়ে থেকে কাতার বিশ্বকাপের টিকেট কাটে সেলেকাওরা , মূলত দলের এমন পারফরমেন্স নিয়ে আশায় বুক বাঁধছেন কার্লোস।

কার্লোস মনে করেন, নিজেদের কাজ সঠিকভাবে করতে পারলেই এবার সোনায় মোড়ানো ট্রফিটা উঠবে নেইমারদের হাতে। শৈল্পিক ফুটবল উপহার দিয়ে ২০০২ সালে পঞ্চম তথা শেষবার বিশ্বকাপ জিতেছিল ব্রাজিল। সেই দলে রোনালদো লিমা, রিভালদো, রোনালদিনহোর সঙ্গে ছিলেন রবার্তো কার্লোসও। দেখতে দেখতে ট্রফিহীন ২০টি বছর পেরিয়ে গেছে। তবে উত্তরসূরিদের নিয়ে এবার খুব আশাবাদী কার্লোস। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ব্রাজিলের একটি দুর্দান্ত দল রয়েছে। এটাই (বিশ্বকাপ) জয়ের সময়, কারণ আমাদের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সবশেষ স্মৃতি ২০০২ সালের। আমি খুব আশাবাদী।’

ব্রাজিলের সবশেষ হারটা এসেছে কোপা আমেরিকার ফাইনালে, তাদের হারিয়ে ২৮ বছরের খরা শেষ করে আর্জেন্টিনা জেতে শিরোপা। তবে কার্লোস মনে করেন, মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের আসরের চেয়ে বিশ্বকাপের গুরুত্বটা ঢের বেশি।

কার্লোস জানান , ‘ কোপা আমেরিকাও গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু ব্রাজিলিয়ানদের জন্য এই বিশ্বকাপ খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে যাচ্ছে। বিশ্বকাপের স্বাদটা বিশেষ। জাতীয় দলের হয়ে খেলা ও জেতার অনুভূতি অসাধারণ । ‘

কাতার বিশ্বকাপে ব্রাজিল লড়বে ‘জি’ গ্রুপে। ২৪শে নভেম্বর তাদের প্রথম ম্যাচ সার্বিয়ার বিপক্ষে। ২৮শে নভেম্বর সুইজারল্যান্ড ও ২রা ডিসেম্বর ক্যামেরুনের বিপক্ষে মাঠে নামবে সেলেসাওরা। গ্রুপসেরা হলে শেষ ষোলোতে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ হবে। ‘এইচ’ গ্রুপের রানার্সআপ দল। ‘এইচ’ গ্রুপে রয়েছে পর্তুগাল, উরুগুয়ে, ঘানা ও দক্ষিণ কোরিয়া। শক্তির বিচারে এই গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ভাবা হচ্ছে পতুর্গালকে। সেক্ষেত্রে সম্ভাব্য রানার্সআপ হতে পারে উরুগুয়ে। শেষ ষোলোর বাধা পেরোতে পারলে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ হতে পারে স্পেন অথবা জার্মানি। আর সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা, নেদারল্যান্ডস, ইংল্যান্ড অথবা ফ্রান্সের মধ্য থেকে একটি দলকে পেতে পারে সেলেসাওরা।

তবে কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানির সামনে পড়ে গেলে কি হবে কিছুই বলা যায় না । কারণ জার্মানি ল্যাটিন দলের বিরুদ্ধে সব সময়েই ভয়ংকর । ২০১৪ বিশ্বকাপে ব্রাজিলের মাটিতে ব্রাজিলকেই তারা ৭-১ গোলের লজ্জায় ডুবিয়েছিল ।

আহাস/ক্রী/০০৩