Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

শাভির সেই বার্সা শাভির এই বার্সা

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বার্সেলোনার কোচ হিসেবে শাভি হার্নান্দেজের অভিষেক হতে চলেছে স্প্যানিওলের বিপক্ষে । শনিবার (২০ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত দুইটায় স্প্যানিশ লা লিগার ম্যাচে মুখোমুখি হবে একই শহরের দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ।

এস্পানিওলের বিপক্ষে ম্যাচটি শুধু শাভির জন্য নয় , বার্সেলোনার সমর্থকদের জন্যেও একটি বিশেষ দিন । বার্সার কিংবদন্তী খেলোয়াড় শাভি যে ২৩৭৩ দিন পর আবারও ফিরছেন ন্যু ক্যাম্পে । তবে এবার খেলোয়াড় হিসেবে নয় , কোচের ভুমিকায় । বার্সেলোনার সাম্প্রতিক ভরাডুবিতে দায়িত্ব হারিয়েছেন ডাচম্যান রোনাল্ড কোম্যান । তাকে বিদায় দিয়ে দুই সপ্তাহ আগে কোচ হিসেবে শাভিকে নিয়োগ দেয় বার্সেলোনা । শাভিকে নিয়োগ দেওয়া বললে হয়ত একটু ভুল হবে , কারণ এই সাবেক মিডফিল্ডারকে বছর দুয়েক ধরেই চাইছিল কাটালানরা । কিন্তু কাতারের আল সাদ ক্লাবের দায়িত্বে থাকায় চুক্তি ভেঙ্গে ফিরতে পারছিলেন শাভি নিজের আপন ঠিকানায় । দুই পক্ষের সমঝোতায় অবশেষে চলতি নভেম্বরেই নিশ্চিত হয় শাভির ফেরা ।

ইতোমধ্যে বার্সেলোনা স্কোয়াড নিয়ে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন শাভি । যদিও আন্তর্জাতিক বিরতির কারণে ‘ম্যানেজার’ হিসেবে বার্সেলোনার তার অভিষেকের অপেক্ষা একটু দীর্ঘায়ীত হয় । সেই অপেক্ষার শেষ হয়েছে , এস্পানিওলের বিপক্ষে প্রিয় ক্লাবে নিজের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করছেন শাভি ।

শাভি ছিলেন বার্সেলোনা আর স্পেনের সোনালী সময়ের অন্যতম কাণ্ডারি । বার্সেলোনা সিনিয়র দলের হয়ে ১৯৯৮-২০১৫ পর্যন্ত খেলেছেন ৭৬৭ ম্যাচ , করেছেন ৮৫ গোল । জিতেছেন ২৫টি শিরোপা । বার্সেলোনায় খেলে তিন মৌসুম তিনি পেয়েছেন সেরা মিডফিল্ডারের খেতাব । ২০১০ সালে জিতেছেন ‘ওয়ার্ল্ড সকার’ এর দেয়া বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার । ২০০৮ সালে উয়েফা ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের সেরা খেলোয়াড় ছিলেন তিনি । স্পেনকে একবার বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন , জিতেছেন দেশের হয়ে দুইটি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ ।

মাঝমাঠে আন্দ্রে ইনিয়েস্তা আর শাভিরা মিলে বার্সেলোনাকে করে তুলেছিলেন অপরাজেয় । শাভির যুগে বার্সা জিতেছে চারটি উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ । শাভিদের সাহচর্যেই লিওনেল মেসি হয়ে উঠেছেন সেরাদের সেরা । বার্সা হয়েছে বিশ্বের সেরা ক্লাব ।

বার্সেলোনার জার্সিতে দেপোর্তিভো লা করুনার বিপক্ষে শেষবার শাভি মাঠে নেমেছিলেন ২০১৫ সালের ২৩ মে। সেদিন কানায় কানায় ভরে গিয়েছিল ন্যুক্যাম্প। ক্লাব কিংবদন্তিকে বিদায় জানাতে মাঠে এসেছিলেন প্রায় ৯৪ হাজার সমর্থক। সেই ঘটনার সাড়ে ছয় বছর পর আবারও নিজেদের হিরো’কে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত বার্সেলোনার সমর্থকরা ।

তবে শাভির জন্য এবারের পরিস্থিতি অনেকটাই ভিন্ন । সেই সময় বার্সেলোনা ছিল বিশ্বর অন্যতম সেরা দল , আর এই মুহূর্তে সেই দলটাই খুঁজছে আলোর দিশা । লীগ টেবিলে ১২ ম্যাচে মাত্র ১৭ পয়েন্ট নিয়ে নবম অবস্থানে বার্সেলোনা । শীর্ষে থাকা রিয়েল সোসিদাদের সাথে তাদের ব্যবধান ১১ পয়েন্ট । যদিও লীগের এখনও মাঝপথই শেষ হয় নি । অথচ লীগ শিরোপার আশা ইতোমধ্যে ছেড়ে দিয়েছে বার্সা পাঁড় ভক্তরাও । শাভির অধীনে সেরা চারে থেকে আগামী চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সরাসরি খেলার সুযোগ পেলেই হয়ত খুশী হবে সবাই !

তবে এসব কিছু নিয়ে এখনই কোন মন্তব্য করছেন না শাভি । তিনি আপাতত দলের পুনর্গঠনেই মনযোগী । ফিরিয়ে আনতে চান দলের হারানো আত্মবিশ্বাস । দলকে আনতে চান কঠোর নিয়মের মধ্যে । ৮ নভেম্বর দায়িত্ব নিয়েই শাভি চালু করেছেন কিছু নতুন নিয়ম । যেমন –

১) অনুশীলনের কমপক্ষে দেড় ঘণ্টা আগে আসতে হবে খেলোয়াড়দের। যাতে প্রশিক্ষণ সেশনের জন্য প্রস্তুত হওয়া যায় এবং নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে একে অপরের পরিকল্পনার বিষয়ে ধারণা নেওয়া যায়।

২) আর খেলোয়াড়দের আরো আধা ঘণ্টা আগে আসতে হবে দলের কর্মচারীদের। যাতে অনুশীলন শুরুর আগে সবকিছু ঠিকঠাক করে রাখা যায়।

৩) সাবেক কোচ পেপ গার্দিওয়ালার মতোই খেলোয়াড়দের জরিমানার নিয়ম অচিরেই চালু করবেন জাভি। ফুটবলাররা যেন যথেষ্ট পেশাদার হয়ে থাকেন সেজন্যই এই ব্যবস্থা।

এছাড়া খেলোয়াড়দের অনেকরাত পর্যন্ত পার্টি , সার্ফিং , ইলেকট্রিক বাইক চালানো নিষিদ্ধ করা হয়েছে । এগুলো অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন শাভি ।

মোট কথা , বার্সেলোনাকে মাঠের যুদ্ধে নামার আগে নিয়মানুবর্তিতায় অভ্যস্ত করতে চেয়েছেন শাভি । যা যে কোন খেলোয়াড় আর দলের সাফল্যের জন্য প্রথম আর প্রধান শর্ত ।

তবে বার্সেলোনায় সব কিছু আগের মত পাবেন না শাবি , এটাও বাস্তবতা । কারণ এই মুহূর্তে বার্সেলোনা ডুবে আছে আর্থিক দেনায় । যে কারণে মেসির মত খেলোয়াড় ছেড়ে দিতে হয়েছে । আবার কোম্যানের আত্মঘাতী ভুল সিদ্ধান্তে বার্সা ছেড়েছেন লুইস সুয়ারেজ আর এন্থইন গ্রিজম্যানরা । ফলে বার্সায় এখন আনসু ফাতিদের মত তরুণদের উপর ভরসা রাখতে হবে শাভিকে । এছাড়া কয়েকদিন প্রশিক্ষণের পর মেমফিস ডিপে , গাবি , ফ্রাংকি ডি ইয়াং আর ফিলিপ্পে কুটিনিওদের উপর দারুণ খুশী শাভি । এদের অনেকেরই বিশ্বসেরাদের তালিকায় আসার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেন তিনি ।

শাভি বার্সেলোনায় ফিরিয়ে এসেছেন পুরনো সতীর্থ ড্যানি আলাভেজকে । আগামীতে মেসিকে ফেরাতে আলাভেজ আর শাভি চেষ্টা করবেন , এটাও নিশ্চিত । সেই ইঙ্গিত দিয়েছেন বার্সেলোনার সভাপতি হুয়ান লাপের্তো । তবে সেটা পরের কথা । এখন যারা আছে স্কোয়াডে , তাদের নিয়েই সাফল্য পেতে চান শাভি ।

শুরুতেই অবশ্য ইনজুরিতে থাকা আনসু ফাতিহ , ব্রেথওয়েট , উসমান ডেম্বেলের পাচ্ছেন না শাভি ।

আহাস/ক্রী/০০৩