Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

নাচতে পেরেছেন , খেলতে পারেন নি নেইমার !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

নেইমার জুনিয়র আবারও পড়েছেন বিতর্কের ফাঁদে । আর্জেন্টিনার বিপক্ষে মাঠে না নেমে আগের রাতে ‘নাইট ক্লাবে’ উদ্দাম নাচানাচির অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন তিনি ।

বুধবার (১৭ নভেম্বর) স্যান জুয়ানে মুখোমুখি হয়েছিল দুই চির-প্রতিপক্ষ আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল । ফিফা বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচটি শেষ গোলশূন্য ড্রয়ে । এই ম্যাচের আগেই কাতার বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত করেছিল সেলেকাওরা । অন্যদিকে ব্রাজিলের বিপক্ষে ড্র আর ইকুয়েডরের কাছে চিলি হেরে যাওয়ায় কাতারে যাওয়া নিশ্চিত হয়েছে আলবেসেলেস্তেদেরও ।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচে ছিলেন না নেইমার জুনিয়র । যদিও আগের ম্যাচেই কলম্বিয়ার বিপক্ষে পুরো নব্বই মিনিট খেলেছেন তিনি । ছিলেন আর্জেন্টিনা ম্যাচের আগে অনুশীলনেও । কিন্তু ম্যাচের আগের বিকেলে হঠাৎ করে ‘উরু’তে চোট পাওয়ার কথা জানান পিএসজি তারকা । যে কারণে স্যান জুয়ানে নেইমারবিহীন স্কোয়াড নামান কোচ টিটে ।

যে কোন খেলোয়াড় যে কোন সময় ইনজুরিতে আক্রান্ত হতেই পারেন – এটা খেলার অংশ । আর নেইমারের ইনজুরি সমস্যা তো গোটা ক্যারিয়ার জুড়ে । প্রায় প্রতি মৌসুমে ইনজুরির কারণে লম্বা সময়ের জন্য খেলা ছিটকে পড়া নেইমারের জন্য অনেকটা নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে । তাহলে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ইনজুরিতে নেইমারের না খেলতে পারা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠছে কেন ?

আসলে এই বিতর্ক আর সমালোচনা উস্কে দিয়েছে ‘ওস দনোস দা বোলা’ নামে খোদ ব্রাজিলের একটি টিভি অনুষ্ঠান । অনুষ্ঠানে জানানো হলো, ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচের আগে সাও পাওলোতে নৈশ ক্লাবের পার্টিতে নাচানাচি করতে দেখা গেছে নেইমারকে। ব্রাজিলিয়ান তারকার নাচে মত্ত হওয়ার ফুটেজও প্রকাশ করেছে টিভি অনুষ্ঠানটি।

নেইমারের সমালোচনা করে অনুষ্ঠানটির সঞ্চালক বলেন, ‘মাংসপেশিতে ব্যথা নিয়ে আপনি খেলতে পারেন। পায়ের হাড়ের ব্যথায়ও খেলতে পারেন। (আমার) নিজেরটা ভেঙেছিল, এ চোট নিয়েও খেলা সম্ভব। কিন্তু মাংসপেশি কিংবা ঊরুতে চোট নিয়ে কেউ এভাবে নাচতে পারে না।’

নেইমারের উদ্দাম জীবন নিয়েও সমালোচনা নতুন কিছু না । আগেও বহুবার নাইট-ক্লাবে নাচানাচি আর মদ্যপান নিয়ে খবরের শিরোনাম হয়েছেন তিনি । ইনজুরির সময় খেলার বাইরে থাকা নেইমারকে ‘ব্যান্ডেজ’ পায়েও নাচতে দেখা গেছে !

এক সময় নেইমারকে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো আর লিওনেল মেসির যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বী বিবেচনা করা হত । কিন্তু নেইমার সে সম্ভাবনায় উৎরাতে পারেন নি । অনেক সমালোচক প্রকাশ্যেই অভিযোগ করেন , খেলার প্রতি নেইমার ততটা সিরিয়াস নন । কিছুদিন আগে ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কাফুও একই কথা বলেছেন ।

ফুটবল বিশ্বে নিয়মানুবর্তিতার জ্বলন্ত উদাহরণ রোনালদো আর মেসি । তারা ব্যক্তিগত জীবনে অনুশীলন আর অধ্যাবসায়ের অনন্য প্রতীক । নিজেদের ‘ফিট’ রাখতে পরিমিত জীবন বেছে নিয়েছেন তারা । যে কারণে এক যুগের বেশী সময় ধরে এই দুই তারকা রাজত্ব করছেন ফুটবল বিশ্বে । আবার জর্জ বেস্ট কিংবা পল গ্যাসকোয়েনের মত ফুটবলার , যাদের সম্ভাবনা ছিল বিশ্বসেরা হওয়ার ; তারা বেশীদিন টিকতে পারেন নি শুধু অনিয়ম আর উচ্ছৃঙ্খল জীবনে অভ্যস্ততার কারণে । নেইমারও বুঝি মেসি-রোনালদোর বদলে হাঁটতে চলেছেন বেস্টদের পথে !

আহাস/ক্রী/০০৩