Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

আবারও বাংলাদেশের অধিনায়ক মুশফিক !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

ইতোমধ্যেই দুইবার পাকিস্তান সফর করে এসেছে বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দল । একই সিরিজের অংশ হিসেবে দুই ধাপে পাকিস্তানের সাথে তিনটি টি-২০ (একটি পরিত্যক্ত) আর একটি টেস্টে খেলেছে বাংলাদেশ । সর্বশেষ চলতি মাসেই রাওয়ালপিন্ডিতে খেলা টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হেরে ফিরেছে টাইগাররা ।

দুই ধাপে খেলে এলেও এখনও শেষ হয় নি বাংলাদেশের পাকিস্তান মিশন । বাকী আছে একটি ওয়ানডে আর একটি টেস্ট । সেই দুই ম্যাচ খেলতে আগামী এপ্রিলের শুরুতেই আবারও পাকিস্তান যাচ্ছে বাংলাদেশ । সেই সফরে এবার বাংলাদেশ দলের সঙ্গী হচ্ছেন মুশফিকুর রহিম ।

আগের দুই দফায় পাকিস্তান সফরের স্কোয়াডে ছিলেন না মুশফিক । বাংলাদেশের এই অভিজ্ঞ তারকা পাকিস্তান যান নি নিরাপত্তার কারণে । পাকিস্তান সফরে নিরাপত্তা নিয়ে পরিবারের আপত্তির কারণে তার যাওয়া হয় নি বলে জানা গেছে ।

মাত্রই শেষ হয়েছেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র টেস্ট । মিরপুরের শের-এ-স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে টাইগাররা জিতেছে ইনিংস ব্যবধানে । বাংলাদেশের একমাত্র ইনিংসে ডাবল সেঞ্চুরি করে ম্যাচ জয়ের মূল নায়ক ছিলেন মুশফিক । সেই সাথে গড়েছেন টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে বেশী রান করার রেকর্ড ।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে মুশফিক খেলেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগে (বিসিএল) । সেখানেও ভাল ফর্মে ছিলেন মুশফিক । যে কারণে পাকিস্তানে তৃতীয় দফার সফরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) মুশফিককে অবশ্যই দলে চায় । আর তাছাড়া দলের অন্যতম সিনিয়র আর নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় হিসেবে মুশফিককে ছাড়া এখনও বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দল ভাবা যায় না ।

পাকিস্তান সফরে না থাকায় জিম্বাবুয়ে সিরিজে মুশফিককে দলে না রাখার কথা জানিয়েছিলেন কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো । যদিও পরে তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে স্কোয়াডে । জানা গেছে , ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণার ঠিক আগের দিন কক্সবাজার গিয়ে বিসিবির দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার মুশফিককে পাকিস্তানে যেতে রাজি করান। কক্সবাজারে তখন বিসিএলের ম্যাচ খেলছিলেন উইকেটরক্ষক এ ব্যাটসম্যান।

দেশের ক্রিকেটের দুই সিনিয়রের অনুরোধ রেখে পাকিস্তানে যেতে রাজি হওয়ায় অনেক দিক থেকেই স্বস্তি ফিরেছে জাতীয় দলে। করাচি টেস্টে পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে খেলতে পারবে বাংলাদেশ। অধিনায়ক মুমিনুল হকও সহযোগিতা পাবেন সিনিয়রের কাছ থেকে।

এ ব্যাপারে মুশফিক জানিয়েছেন, ‘আল্লাহ ভরসা, চেষ্টা করব ছন্দটা ধরে রেখে পাকিস্তানে খেলতে। দলের ভেতরে আত্মবিশ্বাস ফিরেছে। আশা করি ভালো ক্রিকেট খেলতে পারব ওখানে।’

এদিকে শুধু পাকিস্তান সফরে যাওয়াই নয় , মুশফিককে দেয়া হয়েছে ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হবার প্রস্তাব – এমনটাই জানা গেছে বিশ্বস্ত সুত্রে । জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর মাশরাফি বিন মুর্তজা অধিনায়ক থাকছেন না বলে চাউর হয়েছে । তার না থাকায় পাকিস্তানে ওয়ানডে দলের নেতৃত্ব মুশফিকের উপর ন্যস্ত করতে চায় বিসিবি , তবে সেটা স্থায়ীভাবে নয় ।

বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান আছেন নিষেধাজ্ঞায় । গত অক্টোবরে ক্রিকেট জুয়াড়িদের সাথে সম্পর্ক গোপন করায় সাকিবকে এক বছরের জন্য বহিস্কার করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা – আইসিসি । সব কিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরের অক্টোবরে আবার খেলায় ফিরছেন সাকিব । সেই সময়ে আবারও তার হাতে দলের নেতৃত্ব তুলে দেয়া হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ।

এই মুহূর্তে মাহমুদুল্লাহ আছেন ওয়ানডে দলের নেতৃত্বে । মুশফিক রাজী হলে মাহমুদুল্লাহ আর অধিনায়ক থাকছেন না । মুশফিক হবেন অন্তর্বর্তীকালীন অধিনায়ক । কিন্তু সমস্যা হচ্ছে , মুশফিক মাঝামাঝি সময়ের জন্য দায়িত্ব নিতে রাজী না । জানা গেছে, মুশফিক চান দীর্ঘ মেয়াদের জন্য অধিনায়ক হতে। এছাড়া তার টেস্ট ক্যাপ্টেন্সি কেড়ে নেবার বিষয়টিও নাকি মুশফিককে এখনো পোড়ায় , যা তিনি এখনও ভুলতে পারেন নি ।

কাজেই পাকিস্তান সফরে দলের অধিনায়ক হতে রাজী হবেন , এমন সম্ভাবনা খুব কম । আবার তিনি পাকিস্তানে যাচ্ছেন এমন নিশ্চয়তা পাওয়া যাবে স্কোয়াড ঘোষণার পরেই । আপাতত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আসন্ন ওয়ানডে আর টি-২০ সিরিজ নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চান তিনি । পাকিস্তান সফরের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন জিম্বাবুয়ে সিরিজের পরেই । ফলে মুশফিকের বিষয়ে নিশ্চিত হতে সেই সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হচ্ছে ।

আহাস/ক্রী/০০১