Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

যুব বিশ্বকাপে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

আগামী ১৭ জানুয়ারি থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে শুরু হচ্ছে আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট । ১৬ দল নিয়ে অনুষ্ঠিতব্য এই আসর শেষ হবে ৯ ফেব্রুয়ারি ফাইনালের মধ্য দিয়ে । আসরে অংশ নিতে আকবর আলীর নেতৃত্বে ইতোমধ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকায় পৌঁছেছে বাংলাদেশের যুব দল ।

আসন্ন যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল গেছে অনেক বড় লক্ষ্য নিয়ে । সাম্প্রতিক সময়ে নিউজিল্যান্ডে সিরিজ জিতেছে টাইগার যুবারা । ইংল্যান্ডে জিতেছে ত্রিদেশীয় একদিনের সিরিজ । যেখানে খেলেছিল ভারতীয় যুব দলও । ফাইনালে ভারতকে হারিয়েই শিরোপা উল্লাসে মেতেছিল আকবর আলীরা ।

ঘরের মাঠে ২০১৬ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে তৃতীয় হয়েছিল বাংলাদেশ। সেটাই এখনো পর্যন্ত যুব বিশ্বকাপের সেরা সাফল্য। ২০১৬ সালের বিশ্বকাপের পর থেকে ৩৩টি ওয়ানডে খেলে ১৮টিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। হেরেছে মাত্র ৮টি ম্যাচ। এমন ধারাবাহিক সাফল্যে এবার দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিতব্য যুব বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলার স্বপ্ন বাংলাদেশের ।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সি গ্রুপে খেলবে বাংলাদেশ। যেখানে অন্য তিনটি দল পাকিস্তান, স্কটল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ে। প্রথম ম্যাচে ১৮ জানুয়ারি জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ২১ জানুয়ারি খেলবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। ২৪ জানুয়ারি শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। মূল আসরে নামার আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় নিজেদের মানিয়ে নিতে একাধিক প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ ।

এদিকে যুব বিশ্বকাপ শুরুর আগেই একটি অন্যরকম সুসংবাদ পেয়েছে বাংলাদেশ । আইসিসি জানিয়েছে , আসন্ন যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশের দুই আম্পায়ার ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পাচ্ছেন । তারা হলেন বিসিবির ইন্টারন্যাশনাল প্যানেল আম্পায়ার শরফোদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত ও মাসুদুর রহমান মুকুল

এটা বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে একেবারে নতুন ঘটনা । কারণ আগে কখনও আইসিসি’র কোনো ইভেন্টেই ডাকা হয়নি বাংলাদেশের একাধিক আম্পায়ারকে। যুব বিশ্বকাপে ডাকা হত একজনকে। সেটা নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যে একটা আক্ষেপ ছিল। অবশেষে সেই আক্ষেপ ফুরালো।

যুব বিশ্বকাপে মুকুল প্রস্তুতি ম্যাচসহ মোট ৭টি ম্যাচে দায়িত্ব পালন করবেন। ১৩ জানুয়ারি জাপান-স্কটল্যান্ডের প্রস্তুতি ম্যাচে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে থাকবেন তিনি। ১৪ জানুয়ারি ইংল্যান্ড-আফগানিস্তানের প্রস্তুতি ম্যাচে তিনি থাকবেন চতুর্থ আম্পায়ার। ১৫ জানুয়ারি জাপান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রস্তুতি ম্যাচে ফিল্ড আম্পায়ারের দায়িত্ব পালন করবেন।

১৮ জানুয়ারি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচে চতুর্থ আম্পায়ারের দায়িত্ব থাকবেন মুকুল। ২২ জানুয়ারি আফগানিস্তান-আরব আমিরাতের ম্যাচে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে থাকবেন। ২৪ জানুয়ারি ভারত-নিউজিল্যান্ডের ম্যাচেও তাকে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যাবে। আর ২৫ জানুয়ারি মঙ্গুনুই ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকা ও আরব আমিরাতের ম্যাচে চতুর্থ আম্পায়ারের দায়িত্ব পালন করবেন মুকুল।

১২টি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট এবং ৩০টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ খেলা মুকুলের খেলোয়াড়ী জীবন অনেকটাই বিবর্ণ! কিন্তু মাঠের আম্পায়ারিংয়ে তার রয়েছে বেশ সুনাম। মাসুদুর রহমান মুকুল দেশ ছাড়ার আগে জানালেন, সেই সুনামটা ছড়িয়ে দিতে চান আন্তর্জাতিক মঞ্চে। আইসিসির এই ইভেন্টে চাপ থাকলেও নির্ভুল ভাবে কাজ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন ভালো জানালেন অভিজ্ঞ এই আম্পায়ার।

অন্যদিকে শরফোদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত প্রস্তুতি ম্যাচসহ মোট ৮টি ম্যাচে দায়িত্ব পালন করবেন যুব বিশ্বকাপে।

১২ জানুয়ারি নাইজেরিয়া-পাকিস্তানের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচে তিনি ফিল্ড আম্পায়ার থাকবেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৪ জানুয়ারি পাকিস্তানের পরের প্রস্তুতি ম্যাচে থাকবেন ফোর্থ আম্পায়ার হিসেবে। ১৫ জানুয়ারি ওয়েস্ট ইন্ডিজ-স্কটল্যান্ডের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

মূলপর্বে তিন ম্যাচে ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন সৈকত। এক ম্যাচ থাকবেন টিভি আম্পায়ার। আর একটি ম্যাচে থাকবেন চতুর্থ আম্পায়ার হিসেবে।

৪৪ বছর বয়সী মাসুদুর রহমান মুকুল ২০০০ সাল থেকে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে আম্পায়ারিং শুরু করেন। আর ৪৩ শরফোদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত ২০০৭ সাল থেকে শুরু করেন। তাদের দুজনেরই রয়েছে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করার অভিজ্ঞতা।

আহাস/ক্রী/০০২