Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

পাকিস্তান সফরে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন-আপে চমক

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

সব অনিশ্চয়তা কাটিয়ে পাকিস্তান সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দল । তিন দফায় আলোচিত এই সফরের প্রথম ধাপে হবে তিনটি টি-২০ ম্যাচের সিরিজ । রবিবার (১৯ জানুয়ারি) পাকিস্তান সফরের জন্য শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের অনুশীলন ।

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজের জন্য ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশ দল । ১৫ সদস্যের এই স্কোয়াডে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ।

নিষেধাজ্ঞার কারণে দলে নেই সাকিব আল হাসান । আর পারিবারিক কারণ দেখিয়ে পাকিস্তান যাচ্ছেন না মুশফিকুর রহিম । এছাড়া বাংলাদেশের জাতীয় দলে প্রথমবারের মত ডাক পেয়েছেন দ্রুতগতির বোলার হাসান মাহমুদ ।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ঘোষিত বাংলাদেশ স্কোয়াড নিয়ে খানিকটা দ্বিধায় আছেন অনেকেই । বিপিএলে ফর্মে থাকা ইমরুল কায়েসকে কেন ডাকা হয় নি ? আবার দলে কেন এত ওপেনার ?

দুইটি প্রশ্নের উত্তরই মিলেছে । বিসিবি’র তরফে জানানো হয়েছে , হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে বিবেচনায় থাকলেও শেষ মুহূর্তে বাদ পড়েছেন ইমরুল ।

অন্যদিকে বাংলাদেশ স্কোয়াডে তামিম ইকবাল ছাড়াও আছেন লিটন দাস , নাজমুল হাসান শান্ত , নাইম শেখ আর সৌম্য সরকার । যারা প্রত্যেকেই ওপেনার আট ভাল করেছেন সর্বশেষ বিপিএলে । এদের মধ্যে কোন দুইজনকে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলাবে বাংলাদেশ ?

বাংলাদেশের ওপেনার হিসেবে এখনও তামিম ইকবাল ‘অটোম্যাটিক চয়েজ’ । তার সাথে লিটন দাসে খেলার সম্ভাবনাই বেশী । যদিও এই সিদ্ধান্ত নেবে টিম-ম্যানেজমেন্ট । কিন্তু নির্বাচক হাবিবুল বাশার জানিয়েছেন , ‘ দলে সৌম্য কিংবা শান্ত বিবেচিত হচ্ছেন মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে । ‘

সদ্য সমাপ্ত বিপিএলে মিডল অর্ডারে ব্যাট করে সফল হয়েছেন সৌম্য। বল হাতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের হয়ে খেলা এই অলরাউন্ডার। ১২ ম্যাচে করেছেন ৩৩১ রান। উইকেট নিয়েছেন ১২টি।

এবারের বিপিএলে তো আফিফ হোসেন আর মেহেদি হাসান মিরাজকেও দেখা গেছে সফল্ভাবে ওপেন করতে । আর তারাও আছেন পাকিস্তান সফরের দলে ।

বিপিএলে লিটন দাসের সঙ্গে ওপেনিং করেছেন আফিফ হোসেন। প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই রাজশাহী রয়্যালসকে দারুন শুরু এনে দিয়েছেন তিনি। আফিফ ৩৭০ রান করেছেন ১৩১.২০ স্ট্রাইক রেটে। উইকেট নিয়েছেন ৭টি।

সৌম্য-আফিফকে দলে নেয়া প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের ব্যাখ্যা, ‘সৌম্যকে আমরা মিডল অর্ডারেই ভেবেছি। সেই ভাবনা থেকেই বিপিএলে ওকে মিডল অর্ডারে খেলানো হয়েছে। ওর বোলিংও ভালো হচ্ছে এখন। আফিফ বিপিএলে ওপেনিংয়ে ভালো করেছে বটে। তবে জাতীয় দলের জন্য আমরা ওকে মিডল অর্ডারেই ভেবেছি। প্রয়োজনে তিনেও খেলতে পারে।’

মুশফিকুর রহিম না থাকায় নাজমুল হোসেন শান্ত মূলত দলে এসেছেন ব্যাকআপ ব্যাটসম্যান হিসেবে। টুর্নামেন্টে দেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একমাত্র সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। তার সাথে ওপেনার আর উইকেট রক্ষক – দুই বিভাগেই লড়াই হবে লিটনের । তবে অভিজ্ঞতার বিচারে প্রথম সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা লিটনের বেশী ।

প্রধান নির্বাচক জানিয়েছেন, তাদের ভাবনাই চূড়ান্ত নয়। এ জন্য টিম ম্যানেজম্যান্ট আছে। তারা ভাববে কাকে কেথায় খেলানো যায়।

প্রধান নির্বাচক নান্নু জানিয়েছেন , ‘আমরা দল গড়েছি আমাদের ভাবনায়। টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে তো আলোচনা হয়েছেই। তবে টিম ম্যানেজমেন্ট পরিস্থিতি বুঝে যে কোনো কিছুই করতে পারে। শান্ত আছে, ওপেন থেকে শুরু করে নিচেও খেলতে পারবে। টি-২০ ক্রিকেটে আসলে এই পজিশনগুলোর হেরফের হতেই পারে। ওদের সবাইকে টিম ম্যানেজমেন্ট তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী খেলাতে পারে।’

আহাস/ক্রী/০০৫