Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

‘গোল্ডেন বুট’ জেতা স্ট্রাইকার এখন বাংলাদেশের জাতীয় দলে

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

আগামী ১৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট । স্বাগতিক বাংলাদেশ ছাড়াও এই আসরে অংশ নিচ্ছে আরও পাঁচটি বিদেশী দল । যাদের মধ্যে আছে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শক্তিশালী ফিলিস্তিন । প্রতিযোগিতার প্রথম দিনেই হট ফেভারিট ফিলিস্তিনিদের বিপক্ষে গ্রুপ ম্যাচ খেলতে নামবে বাংলাদেশের জাতীয় ফুটবল দল ।

আসন্ন বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই ২৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছেন বাংলাদেশের কোচ জেমি ডে । জামাল ভূঁইয়ার নেতৃত্বেই বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপে খেলবে বাংলাদেশ ।

গত ৮ জানুয়ারি থেকে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোঃ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে বাংলাদেশের অনুশীলন । যদিও প্রথম দিন অনুশীলনে উপস্থিত ছিলেন মাত্র ১৪ জন ফুটবলার । ছিলেন না অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া এবং কোচ জেমি ডেও । আরও অনুপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা কিংসের নয় ফুটবলার এবং আবাহনী ক্রীড়া চক্রের ফরোয়ার্ড নাবিব নেওয়াজ জীবন । তবে পরদিন (৯ জানুয়ারি) জাতীয় দলের অনুশীলনে জামাল ভুঁইয়া আর জীবন ছাড়া সবাই উপস্থিত ছিলেন ।

১০ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অনুশীলন চলছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব লিমিটেডের মাঠে। এদিনই পুরো জাতীয় দল একসাথে অনুশীলন করে প্রথমবার । শুধু ছিলেন না নাবিব নেওয়াজ জীবন । জানা গেছে , অসুস্থতার কারণে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপেই খেলা হচ্ছে না জীবনের ।

ইতোমধ্যে নাবিব নেওয়াজ জীবনের বিকল্প খুঁজে নিয়েছেন কোচ জেমি ডে । দলে সুযোগ পেয়েছেন তরুণ ফরোয়ার্ড ফয়সাল হোসেন ফাহিম। এটাই ফাহিমের জাতীয় দলে প্রথম সুযোগ পাওয়া ।

ফাহিমকে ধরা হয় বাংলাদেশের আগামীদিনের সবচেয়ে প্রতিশ্রুতিশীল স্ট্রাইকার । ২০১৭ সালে সাফ অনুর্ধ-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে হ্যাট্রিকসহ সাত গোল করে আসরের ‘গোল্ডেন বুট’ জিতেছিলেন ফাহিম । একই সাফল্য পান গত বছর অনূর্ধ্ব-১৮ সাফেও ।

ইতোমধ্যে বয়সভিত্তিক ফুটবলে আলো ছড়ানো ফাহিম এখন খেলছেন দেশের অন্যতম বড় ক্লাব সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবে । সেখানেও প্রমাণ করে চলেছেন নিজের প্রতিভা । যে কারণে বাংলাদেশের ইংলিশ কোচ জেমি ডের নজরে পড়ে তিনি এখন মূল জাতীয় দলে ।

গত শুক্রবার সকালে জাতীয় দলের অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন সিরাজগঞ্জের সন্তান ফাহিম । এই নিয়ে তিনি জানান , বৃহস্পতিবার কোচ জেমি ডের ফোন পেয়ে পরদিনই দলের সাথে অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন । আর প্রথম ডাক পেয়ে ছিলেন ভীষণ বিস্মিত ।

কিশোর ফাহিমের ফুটবলের শুরুটা হয়েছিল সিরাজগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী মাছুমপুর ক্রীড়া চক্র ক্লাব থেকে। স্ট্রাইকার হিসেবে তুখোড় ফাহিমের দুর্দান্ত গতির সঙ্গে বলের ওপর নিয়ন্ত্রণটা চোখে পড়ার মতো। উইংয়ে শুরু করে আস্তে আস্তে সেন্ট্রাল পজিশনে খেলে থাকেন। পারেন সঠিক সময় সঠিক জায়গায় থাকতে। দূর থেকে পোস্টে শট নেওয়ার সাহস একটু আলাদাভাবেই পরিচয় করিয়ে দেয় ফাহিমকে।

তবে ফাহিম প্রতিভা নিয়ে সঠিকভাবে বিকশিত হবেন কিনা সেটা সময়েই বলে দেবে । যদিও এখন পর্যন্ত সঠিক পথেই চলছে তার পরিচর্যা । সাইফ স্পোর্টিংয়ের সঙ্গে ২০২১ সাল পর্যন্ত চুক্তি আছে ফাহিমের। সেখানে উয়েফা প্রো লাইসেন্সধারী কোচের অধীনে বেড়ে উঠছেন তিনি । এটা খুব আশার কথা ।

অন্য অনেক প্রতিভার মত ফাহিম অকালেই ঝড়ে যাবেন না , এটাই এখন প্রত্যাশা । কারণ তাতে যে বাংলাদেশের ফুটবলের ক্ষতি ।

আহাস/ক্রী/০০৩