Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

স্যান্টকি কাণ্ড ‘ নিয়ে মুখ খুললেন পাপন

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালনে এবার বিশেষভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) আসর । কোন ফ্রেঞ্চাইজি ছাড়া সম্পূর্ণ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) তত্ত্বাবধানে এবারের আসরের নাম রাখা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’ । কিন্তু চলতি আসরের একেবারে শুরুর দিন থেকে সূচিত হয়েছে নানামুখী বিতর্ক ।

গত ১১ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলের এবারের আসরের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় সিলেট থান্ডার বনাম চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স । কিন্তু সেই ম্যাচেই দারুণ বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন সিলেটের ক্যারিবীয় স্লো মিডিয়াম বোলার ক্রিসমার স্যান্টকি ।

ম্যাচে স্যান্টকির দুই ডেলিভারি নিয়ে সব জায়গায় চলছে আলোচনা-সমালোচনা । ম্যাচে এমন দুইটি ‘ওয়াইড’ আর ‘নো বল’ দিয়েছেন স্যান্টকি , যার সাথে অনেকেই পাচ্ছেন ম্যাচ-ফিক্সিংয়ের গন্ধ ! স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে টি-২০ ক্রিকেটে এমন ডেলিভারি অসম্ভব , এমনকি টেস্ট ম্যাচেও এই দুইটি ডেলিভারি ওয়াইড কিংবা নো হিসেবে বিবেচিত হবে ।

যদিও এতদিন স্যান্টকি কাণ্ড নিয়ে মুখ খোলেন নি বিসিবি’র দায়িত্বশীল কেউ । তবে ঘটনার তিনদিন পর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন প্রতিক্রিয়া ।

পাপন বলেন , ‘ এটা আমাদের দেখার বিষয় নয়, এ নিয়ে কাজ করবে খোদ আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিট। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। নো বল হয়েছে, নো বলটা বড় কিছু না। নো বল খুবই সাধারণ ঘটনা। তবে এরমধ্যে অন্য কিছু আছে কি না সেটা আমাদের দেখার কথা না। সাধারণত এটা আইসিসি দেখে।’

ক্রিকেটে ফিক্সিং বা দুর্নীতির মতো বিষয়গুলোর তদন্ত থেকে শুরু করে শাস্তির ব্যবস্থা করে আইসিসির এন্টি করাপশন ইউনিট। ক্রিকেট বোর্ডের তাই এক্ষেত্রে তেমন কিছু করার নেই। তবে সান্তোকির নো বল বিতর্ক নিয়ে বিসিবির অবস্থান কেমন, বা বিপিএলের আয়োজক বোর্ড কেমনই বা ভাবছে- তা জানতেই পাপনকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন সাংবাদিকরা।

জবাবে পাপন জানান , ‘ প্রত্যেক দলের সঙ্গে অ্যান্টি করাপশন ইউনিটের লোক আছে এবং এটা ওরাই ঠিক করে দিয়েছে। আমরা কোনো ইন্টারফেয়ার করিনি। এর মধ্যে কিছু আছে কী নেই সেটা ওরা দেখবে। এটা নিয়ে আমাদের কিছু বলারও কথা না। এটা নিয়ে কথা বলার কোনো প্রশ্নই নেই।’

উল্লেখ্য, চলতি আসরে এরই মধ্যে ঢাকা পর্বের খেলা শেষ হয়েছে, যেখানে পয়েন্ট টেবিলের চূড়ায় আছে রাজশাহী রেঞ্জার্স। যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ঢাকা প্লাটুন ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। আর টেবিলের চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানটি খুলনা টাইগার্স ও কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের।

তবে যথাক্রমে ৩টি ও ২টি করে ম্যাচ খেলে কোনো জয়ের দেখা না পেয়ে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে রয়েছে সিলেট থান্ডার ও রংপুর রেঞ্জার্স।

আহাস/ক্রী/০০৯