Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

রহমতগঞ্জের এক জয়েই চ্যাম্পিয়ন আবাহনীর বিদায়

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

চলমান ফেডারেশন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে ঢাকা আবাহনী ক্রীড়া চক্র লিমিটেড । আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের বিদায় করে সেমি ফাইনালে নাম লিখিয়েছে পুরান ঢাকার ‘জায়ান্ট কিলার’ খ্যাত দল রহমতগঞ্জ এফসি ।

সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ফেডারেশন কাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হয় ঢাকা আবাহনী আর রহমতগঞ্জ । দারুণ উত্তেজনার ম্যাচটির প্রথম ৯০ মিনিটে কোন দলই গোল করতে পারে নি । পরে অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের খেলা ছিল ১-১ গোলে অমিমাংসিত । ফলে খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে । আর সেখানেই ৪-৩ গোলে জয় নিয়ে বাজীমাৎ করে রহমতগঞ্জ ।

মজার ব্যাপার হচ্ছে , এবারের মৌসুমে একমাত্র দল হিসেবে কোন জয় না পেয়েও কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নেয়া একমাত্র দল রহমতগঞ্জ। গ্রুপ পর্বে দুই হ্যাভিয়েট সাইফ ও শেখ জামালকে রুখে দিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে পুরান ঢাকার দলটি। এই গ্রুপ থেকেই শেখ জামালকে বিদায় বলতে হয়েছে।

অন্যদিকে এবারের ফেডারেশন কাপে আবাহনীর শুরু ছিল দুর্দান্ত । গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে পুলিশকে ৪-০ আরে আরামবাগকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দেয় আকাশী শিবির । কিন্তু ভাগ্যের হাতে মার খেয়ে তাদেরকেই বিদায় নিতে হল নক-আউট পর্বের শুরুতে ।

ফেভারিট হিসেবে নামলেও রহমতগঞ্জের রক্ষণভাগে ভালোই ভুগতে হয়েছে ঢাকা আবাহনীকে। জায়ান্টদের একের পর এক আক্রমণ রুখে দিয়েছে পুরান ঢাকার দলটি।

ম্যাচের চার মিনিটে জীবনের শট গোলরক্ষক লিটনের গায়ে লেগে বাইরে চলে গেলে হতাশ হয় আবাহনীর সমর্থকরা। হতাশা চলে নির্ধারিত সময়ের ৯০ মিনিট পর্যন্ত। ১৭ মিনিটে মামুনের থ্রু পাস থেকে বল পেয়ে ডি বক্সের ডান প্রান্ত থেকে বেলফোর্টের পাস সিক্স ইয়ার্ডের সামনে থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন সানডে।

প্রথমার্ধ রুখে দিয়ে দ্বিতীয়ার্ধেও ধারাবাহিকতা ধরে রাখে রহমতগঞ্জ। দ্বিতীয়ার্ধে জীবনের কাছ থেকে পাস পেয়ে ডি বক্সের সামনে থেকে সানডের শট রুখে দেন রাসেল মাহমুদ লিটন। ৮৫ মিনিটে বেলফোর্টের ব্যাকভলিতে দারুণ সেভ করে দেন রহমতগঞ্জের আসররভ।

ম্যাচের নির্ধারিত ৯০ মিনিটেও আবাহনীকে রুখে দেয় রহমতগঞ্জ।

ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধেই ম্যাচের ডেডলক ভাঙে আবাহনী। ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মাইলসন আলভেসের লম্বা পাস থেকে ভলিতে দুর্দান্ত গোল করেন বেলফোর্ট কার্ভেন্স।

ম্যাচ জিতেই যাচ্ছিল আবাহনী। শুধু রেফারির বাঁশির অপেক্ষা। একেবারে অন্তিম মুহূর্তে গোল করে সমতায় ফেরে ম্যাচে টানটান উত্তেজনা নিয়ে আসে রহমতগঞ্জ। আসররভের লম্বা পাস থেকে হেডে সোহেলকে বোকা বানিয়ে বল জালে জড়ান রহমতগঞ্জের বদলি হিসেবে মাঠে নামা মিডফিল্ডার এনামুল ইসলাম গাজী।

সেই উত্তেজনা ছড়ায় পেনাল্টি শ্যুটআউটে। এবার ম্যাচের নায়ক রহমতগঞ্জের গোলরক্ষক লিটন। আবাহনীর দুই আক্রমণভাগের ফুটবলার সানডে ও বেলফোর্টের শট রুখে দিয়ে রহমতগঞ্জকে সেমিতে তুলে দেন লিটন।

এ জয়ে টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বড় অঘটন ঘটায় রহমতগঞ্জ। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের বিদায় করে টুর্নামেন্টের সবার আগে শেষ দুইয়ে পা রাখে পুরান ঢাকার দলটি।

আহাস/ক্রী/০১১