Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

মাতাল ভারতীয় ক্রিকেটারের বেতাল কাণ্ড !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার প্রভিন কুমারের বিরুদ্ধে মাতাল অবস্থায় প্রতিবেশী আর তার ছেলেকে পেটানোর গুরুতর অভিযোগ উঠেছে । ক্রিকেট ছেড়ে বর্তমানে রাজনীতিকে পেশা হিসেবে নেয়া প্রভিন অবশ্য একে ‘রাজনৈতিক’ ষড়যন্ত্র’ হিসেবেই ব্যাক্ষা দিয়েছেন ।

মিরাটে জন্ম নেয়া প্রভিনের ভারতীয় দলে অভিষেক হয় ২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে । প্রায় চার বছর তিনি ছিলেন টিম ইন্ডিয়ার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য । বলে তেমন গতি না থাকলেও সুইং ছিল, ফলে মোটামুটি কার্যকর বোলারই ছিলেন। ভারতের হয়ে ওয়ানডে খেলেছেন ৬৮টা, ছয়টি টেস্টও খেলেছেন। এখন আর দলে ডাক পান না, ফলে অবসরের ঘোষণা দিয়েছিলেন ২০১৮ সালের অক্টোবরে।

অবসর নিয়েই প্রভিন কুমার নাম লিখিয়েছিলেন রাজনীতিতে। সেই প্রভীন কুমার আবার চলে এলেন খবরে। মাতাল অবস্থায় প্রতিবেশী ও তাঁর সাত বছর বয়সী ছেলেকে পিটিয়েছেন , এমন খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

প্রভিনের নিজ শহর মিরাটে ঘটেছে এই ঘটনা । ঘটনার শিকার দীপক কুমার নিজে অভিযোগ করেছেন এই হামলার ।

দীপক জানান , ‘ মুলতান নগরে আমি আমার ছেলেকে নিয়ে তার স্কুল বাসের জন্য স্ট্যান্ডে অপেক্ষা করছিলাম । ছেলের স্কুল বাসের জন্য প্রভিনের গাড়িকে থামতে হয়েছিল । যা সে মানতে পারে নি । প্রভিন গাড়ি থেকে নেমে বাসের চালককে মারধোর করতে শুরু করে । আমি প্রতিবাদ করলে সে আমাকেও আঘাত করে । ধাক্কা দিয়ে আমার হাত ভেঙ্গে দিয়েছে সে । আমার ছেলেও মেরেছে । ‘

দীপক আরও অভিযোগ করেন , ‘ ঘটনার সময় প্রভিন পুরো মাতাল ছিল । মাতাল অবস্থায় সে এই কাণ্ড করেছে । আমার ছেলের পিঠে আঘাত লেগেছে । ‘

এই নিয়ে স্থানীয় পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছেন দীপক । তবে পুলিশের কাছ থেকে পর্যাপ্ত সহযোগিতা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন তিনি , ‘পুলিশ আমাকে বলছে বিষয়টা আপসে মিটমাট করে নিতে। এমনকি আমাকে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হচ্ছে অজ্ঞাতনামা কারোর কাছ থেকে।’

যদিও প্রভিন জানিয়েছেন , ‘ মিথ্যে কথা বলছে দীপক । আমি তাকে চিনিও না । সেই এলাকায় থাকি না । তবে সেখানে আমার দুই-তিনটি বাড়ি আছে , যেখানে রংয়ের কাজ চলছে । আমি সেখানে বাড়ির মেরামত কাজ দেখতে যাচ্ছিলাম । পথে একটি স্কুল বাসের জন্য আমার গাড়ি এগুতে পারছিল না । আমি নেমে ড্রাইভারকে সেই বিষয়ে বলছিলাম । দীপক নামের লোকটা এসে আমার গলার চেইন ধরে টান দেয় । ‘

৩৩ বছরের প্রভিন জানান , ‘ আমি এখন রাজনীতি করছি , সেটা অনেকের সহ্য হচ্ছে না । সেই জন্য আমার সুনাম নষ্ট করতে চাইছে । আসলে আমাদের সমাজে অন্যের ভালো অনেকেই দেখতে পারে না । দীপককে দিয়ে কেউ এসব অপকর্ম করাচ্ছে আমার বিরুদ্ধে । ‘

বর্তমানে সমাজবাদী পার্টির নেতা প্রভিনের বিরুদ্ধে মারামারির অভিযোগ অবশ্য এবারেই প্রথম না । ২০০৮ সালে বন্ধুর সাথে মিলে মিরাটের এক ডাক্তারকে মারার অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে ।

এবারের ঘটনা নিয়ে উত্তর প্রদেশের পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট অখিলেশ নারায়ণ সিং অবশ্য ন্যায্যবিচার হওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন, ‘ওরা দুজনেই প্রতিবেশী। পুলিশ ব্যাপারটা জানতে পেরেছে। তাদের দুজনের বক্তব্যই পেয়েছি আমরা। মেডিকেল প্রক্রিয়াও শুরু করে দিয়েছি। আমরা দেখছি কী করা যায়।’

যদিও পুলিশের পক্ষ থেকে এখনো প্রভীন কুমারের বিপক্ষে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

আহাস/ক্রী/০০৪