Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাংলাদেশী তিন ফুটবলারের উপর নিষেধাজ্ঞা

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বাংলাদেশের ফুটবলের অবস্থান যাই হক না কেন , এখানে এখনও দলবদল নিয়ে সৃষ্টি হয় নানা উত্তেজনা । বিশেষ করে একই ফুটবলারের দুই ক্লাবের সাথে মৌখিক চুক্তি কিংবা আগাম পারিশ্রমিক নেয়ার ঘটনা এই দেশে নতুন কিছু না । আর এমন ঘটনা নিয়ে প্রায়শই ঝামেলা সৃষ্টি হয় একাধিক ক্লাবের মধ্যে । ত্তে খেলোয়াড় নিজে তো ভোগেন নি , ভোগান্তি কম হয় না সংশ্লিষ্ট ক্লাবগুলোর ।

মাত্রই ফেডারেশন কাপ দিয়ে শুরু হয়েছে বাংলাদেশের ২-১৯-২০ সালের ঘরোয়া ফুটবল মৌসুম । এর মধ্যেই ঝামেলা বেঁধেছে ডিফেন্ডার রায়হান হাসান, মিডফিল্ডার সোহেল রানা ও সোহেল রানাকে নিয়ে । তারা নতুন মৌসুমের প্রথম ম্যাচে পুলিশের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল ঢাকা আবাহনী ক্রীড়া চক্র লিমিটেডের হয়ে । কিন্তু এক ম্যাচ খেলার পরেই জাতীয় দলের তিন তারকার উপর নেমে এসেছে আদালতের নিষেধাজ্ঞা । যে কারণে এই ত্রয়ীর আবাহনীর হয়ে ফেডারেশন কাপের পরবর্তী ম্যাচগুলো খেলা হচ্ছে না।

জাতীয় দলের তিন খেলোয়াড়ের বিপক্ষে আদালতে অভিযোগ দাখিল করেছেন দেশের অন্যতম বড় দল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র । তাদের দাবী , এই তিন খেলোয়াড় আগাম টাকা নিয়ে আবাহনীতে যোগ দিয়েছেন। শেখ রাসেলের এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন, শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র ও আবাহনী ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

এই নিয়ে আবাহনীর ম্যানেজার সত্যজিত দাস রুপু জানিয়েছেন , ‘ তিন খেলোয়াড়ের বিষয়টি বাফুফের প্লেয়ার্স স্ট্যাটাস কমিটিতে সমাধান হয়েছিল। তারপরেও কেন হাইকোর্টে নেওয়া হলো বোধগম্য হচ্ছে না। বিষয়টি এখন আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।’

গত মৌসুমে রায়হান হাসান ও সোহেল রানা খেলেছেন আবাহনীতে । কিন্তু এবার তারা আবাহনী ছেড়ে শেখ রাসেলে খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন । সেই মোতাবেক তারা আগাম তাকা নিয়েছিলেন বলে শেখ রাসেলের অভিযোগ ।

অন্যদিকে সর্বশেষ মৌসুমে ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার সোহেল রানা খেলেছেন শেখ রাসেলে । তিনি ক্লাব থেকে চলতি মৌসুমে খেলার জন্য টাকাও নিয়েছিলেন । কিন্তু তিনি শেষ পর্যন্ত চলে এসেছেন আবাহনীতে ।

এমন পরিস্থিতিতে তিন ফুটবলারের বিষয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে শেখ রাসেল । যার প্রেক্ষিতে গত ১৮ ডিসেম্বর হাইকোর্ট এই তিন খেলোয়াড়কে ২০১৯-২০ মৌসুমে শেখ রাসেল ব্যতীত অন্য কোনো ক্লাবের হয়ে মাঠে নামার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন।

এই নিয়ে শেখ রাসেলের পরিচালক সালেহ জামান সেলিম বলেছেন, ‘তিন ফুটবলার আমাদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে। আমাদের কাছে সেই ডকুমেন্ট আছে। আমরা তাদের শিক্ষা দিতে চাই। প্রতিবছর যাতে এই ঘটনা না ঘটে, সে জন্যই আমরা আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি।’

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলাদেশ পেশাদার লিগ কমিটির কর্মকর্তা জাবের বিন তাহের আনসারি জানিয়েছেন , ‘ ‘১৮ ডিসেম্বর আবাহনীর প্রথম ম্যাচ শেষ হওয়ার পর হাইকোর্টের রায়ের কপিটা আমরা পাই। আবাহনী লিমিটেডকে চিঠি দিয়ে তা জানিয়ে দিয়েছি।’

আবাহনী আপাতত তিন ফুটবলারকে মাঠে পাচ্ছে না , এটা নিশ্চিত । এখন দুই পক্ষের সমঝোতা নাকি আদালতেই বিষয়টির নিস্পত্তি হয় সেটা দেখার বিষয় ।

এদিকে প্রায় প্রতি মৌসুমেই এমন ঘটনা ঘটছে দেশের ফুটবলের দলবদলে । এই নিয়ে বাফুফে নানা সময়ে কিছু নিয়ম কানুন প্রয়োগের চেষ্টা করেছে । কিন্তু তাতে যে কোন কাজ হচ্ছে তেমন , সেটা বলাই বাহুল্য ।

আহাস/ক্রী/০০৩