Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মহাযুদ্ধ , জিতবে কে ?

আহসান হাবীব সুমন/ক্রীড়ালোকঃ

হঠাৎ করেই যেন জেগে আড়মোড়া ভেঙ্গে জেগে উঠেছে বাংলাদেশের ফুটবল । ২০২২ সালের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের  বাংলাদেশের খেলায় দেখা যাচ্ছে নতুন জাগরণের বেশ কিছু আলামত । বিশেষ করে সর্বশেষ ম্যাচে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন কাতারের বিপক্ষে বাংলাদেশের দারুণ লড়াই এখন ফুটবল নিয়ে স্বপ্ন দেখতে উদ্বুদ্ধ করছে অনেককেই । আশা জাগাচ্ছে ভারতের বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচে দারুণ কিছু করার । কিন্তু সেটা কি আসলেই  সম্ভব ?

আগামী ১৫ অক্টোবর (মঙ্গলবার) কলকাতার সল্টলেকের যুব ভারতী ক্রীড়াঙ্গনে স্বাগতিক ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ । ম্যাচটি বাংলাদেশের স্থানীয় সময় রাত আটটায় শুরু হবে ।

এবারের বাছাইপর্বে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত দুইটি ম্যাচ খেলেছে । এওয়ে ম্যাচে  আফগানিস্তানের কাছে ১-০ গোলের হার দিয়ে মিশন শুরু জামাল ভুঁইয়াদের । আর পরের ম্যাচে গত বৃহস্পতিবার এশিয়ার সেরা কাতারের বিপক্ষে নিজেদের মাঠে ০-২ গোলে হেরেছে । কিন্তু সেই ম্যাচে বাংলাদেশ হারলেও খেলেছে উজ্জীবিত ফুটবল । কাতারের মত শক্তিশালী দেশকে দ্বিতীয়ার্ধে কোণঠাসা করতে পেরেছে জেমি ডের শিষ্যরা , এটাও কম কথা নয় । কাঁদা মাঠের সুযোগ নিয়ে বাংলাদেশ গোল ছাড়া আর সব কিছুই করেছে । সেই ম্যাচে অন্তত একটি পয়েন্ট বাংলাদেশের প্রাপ্য ছিল এবং এটা এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের জাতীয় দলের সেরা ম্যাচ , বলেছেন অনেকেই । ফলে সব মিলিয়ে ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে মানসিকভাবে এখন অনেকটাই শক্তিশালী লাল সবুজের দেশ ।

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে , প্রতিপক্ষ যেখানে ভারত সেখানে বাংলাদেশ সব সময় কেমন একটা ভাগ্য বিড়ম্বনার শিকার হয়ে আসছে শুরু থেকেই । এই মুহূর্তে বাংলাদেশের চেয়ে ভারত অনেকটাই এগিয়ে ফুটবলে,  কোন সন্দেহ নেই । কিন্তু এক সময় কাছাকাছি অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ বেশীর ভাগ সময় ভাগ্য বিড়ম্বনার শিকার হয়েছে । ১৯৮৫ সালে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে এগিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত ১-২ গোলে হেরেছে ভারতের কাছে । এমন ঘটনা বহুবার দেখা গেছে বিভিন্ন টুর্নামেন্ট আর বয়সভিত্তিক ম্যাচেও । এই চলতি মাসেই বয়সভিত্তিক সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতের যুবাদের কাছে শেষ মুহূর্তের ইনজুরি সময়ের গোলে হেরেছে বাংলাদেশ !

বাংলাদেশের চেয়ে এই মুহূর্তে ফিফা র‍্যাংকিংয়ে অনেক এগিয়ে থাকা ভারত বাছাই ম্যাচে নিশ্চিত ফেভারিট । সর্বশেষ হিসেবে  বাংলাদেশ যেখানে ১০৪ নাম্বারে , সেখানে ভারতের অবস্থান ১০৪ তম । ভারতীয় দলে আছে সুনীল ছেত্রির মত মহাতারকা , যার আন্তর্জাতিক ফুটবলে আছে লিওনেল মেসির চেয়ে বেশী গোল ! এছাড়া অন্যরাও একটা দল হিসেবে দারুণ ব্যালেন্সড । সর্বশেষ এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের মুল পর্বে ভারতের খেলা সবার নজর কেড়েছে । ছেত্রিকে ছাড়াই বাছাই পর্বে ভারত রুখে দিয়েছে কাতারকে , সেটাও প্রতিপক্ষের মাঠে । যদিও নিজ দেশের মাটিতে ওমানের কাছে হেরেছে ভারত । কিন্তু সেটা বরং বাংলাদেশের জন্য  দুঃসংবাদ  । কারণ এখন নিজেদের মাটিতে প্রথম জয়ের জন্য ভারত যে মরিয়া চেষ্টা করবে , সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না ।

বাংলাদেশের জন্য প্রধান সমস্যা হতে পারেন সুনীল ছেত্রি । কারণ বাংলাদেশকে  সামনে পেলেই কেমন যেন জ্বলে ওঠেন তিনি  । এর আগে  জামাল ভুঁইয়াদের বিপক্ষে দুইবারের দেখায় তিন গোল করেছেন ভারতের নামী এই ফরোয়ার্ড । এই নিয়ে জামাল ভুঁইয়া জানিয়েছেন , ‘ এর আগে দু’বার ভারতের বিরুদ্ধে খেলেছি। প্রথমবার ১-১ শেষ হয়েছিল। দ্বিতীয়বার ফল হয় ২-২। ওই দু’টো ম্যাচেই গোল করেছিল সুনিল। ও আমাদের কাছে একটা বড়সড় বিপদ। ভারতের পুরো দলটার রিমোট কন্ট্রোলই সুনিলের হাতে, সঙ্গে উদান্তর গতি এবং গোলবারে গুরপ্রিত সিং সাধু! এই তিন জনের জন্যই ভারত ফেভারিট আমাদের বিরুদ্ধে।’

ভারতকে মোকাবেলায় ইতোমধ্যেই কোলকাতা পৌঁছেছে বাংলাদেশ দল । শনিবার সকালে জামাল ভূঁইয়ারা অনুশীলন করেছেন সল্টলেকের যুব ভারতী ক্রীড়াঙ্গনের ২ নম্বর গ্রাউন্ডে।ইংলিশ কোচ জেমি ডে তার শিষ্যদের ফিজিক্যাল ট্রেনিং করানোর পাশপাশি ক্রস, সেটপিস, গোলকিপিং ট্রেনিং, বল কন্ট্রোলিং নিয়ে অনুশীলন করিয়েছেন ঘন্টা দুয়েক। সকালের ট্রেনিং শেষে জেমি ডে সন্ধ্যায় টিম হোটেলে দল নিয়ে মিটিং করেছেন। সেখানে খেলোয়াড়দের ভারত ও কাতারের ম্যাচটির ভিডিও দেখান কোচ।

ভারতের ম্যাচকে সামনে রেখে রবিবারেও চলবে কঠোর অনুশীলন । এই ম্যাচের আগে ভারতে সংবাদ-মাধ্যমে অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া জানিয়েছেন , ‘ঘরের মাঠে চাপটা বেশি ভারতেরই। কারণ ম্যাচটা ওদের জিততে হবে। প্রতিবেশী দেশের বিপক্ষে এই ফুটবল ম্যাচটা আমরা হারতে চাই না। ম্যাচে কড়া ট্যাকল, ধাক্কাধাক্কি হবেই। আমাদের দলে অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবলারের সংখ্যা বেশি। ভারতকে হারানোর জন্য মরিয়া তাগিদ ও তারুণ্যই আমাদের অস্ত্র।’

এসময় কাতারের বিপক্ষে ম্যাচের প্রসঙ্গ চলে আসলে জামাল বলেন, ‘কাতারের বিপক্ষে সুযোগ তৈরি করেও কাজে লাগাতে পারিনি আমরা। আমি নিজেই দু’টো সহজ গোলের সুযোগ নষ্ট করেছি। তিনবার গোললাইন থেকে বল বিপদমুক্ত করেছে কাতার। আমাদের ভাগ্য সঙ্গে ছিল না।’

ভারতের বিপক্ষে এমন কিছু হবে না বলেই আশা করেন জামাল ভুঁইয়া । তবে এটাও ঠিক , ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ সব সময়েই একটা মনস্তাত্ত্বিক চাপে থাকে । তার উপর খেলা হবে কলকাতার মাঠে । ধারণা করা হচ্ছে , এই ম্যাচে গ্যালারি থাকবে দর্শকে পরিপূর্ণ । কাজেই ভারতের বিপুক্ষে সম্পূর্ণ প্রতিকুল পরিবেশে বাংলাদেশ বাড়তি চাপ অনুভব করবে , এটা পরিস্কার । এখন সেই চাপ থেকে বেরিয়ে এসে শিষ্যদের স্বাভাবিক খেলা খেলতে কিভাবে উজ্জীবিত করবেন জেমি ডে , সেটাই দেখার বিষয় ।

তবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটি যে বাংলাদেশের জন্য এক মহাযুদ্ধ হতে যাচ্ছে , তাতেও কোন সন্দেহ নেই । ইতোমধ্যেই বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে সুনীল ছেত্রিরা । মাঠে আহ্বান জানিয়েছেন দর্শকদের । উদ্দেশ্য , গ্যালারী ভর্তি দর্শক নিয়ে প্রথমেই বাংলাদেশকে ভড়কে দেয়া । কাজেই বাংলাদেশের প্রথম করণীয় এখন মানসিক চাপ জয় করা । এরপর মাঠের খেলা । এই দুইয়ের সঠিক সমন্বয় হলেই কেবল বাংলাদেশ ভারত থেকে ফিরতে পারে ভালো কিছু অর্জন নিয়ে ।

আহাস/ক্রী/০০৪