Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাফুফের আর্থিক অনিয়ম নিয়ে সোচ্চার বাদল রায়

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) বিভিন্ন অনিয়ম আর দুর্নীতি নিয়ে কথা উঠছে অনেক আগে থেকেই । মাত্র ২৪ ঘণ্টা আগেই দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থার বিপক্ষে এমন অভিযোগ এনেছেন সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহি । এবার সেই একই অভিযোগ করেছেন বাফুফের আরেক সহ-সভাপতি বাদল কুমার রায় ।

রবিবার মহিউদ্দিন আহমেদ মহি বাফুফের বিরুদ্ধে তার আনা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ লিখিতভাবে জমা দেন । আর সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বাদল রায় বাফুফে ভবনে মিডিয়া ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন অনিয়মের চিত্র । বাদল রায় অবশ্য আগে থেকেই সোচ্চার ছিলেন বাফুফে’র নানা অনিয়ম নিয়ে । আগেও তিনি এই ফেডারেশনের বিরুদ্ধে এনেছিলেন এমন অভিযোগ ।

বাফুফেতে গেল ৩ বছরে ১৭ কোটি টাকা গড়মিলের অভিযোগ করেছেন সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন মহী। এ নিয়ে সভাপতি বরাবর দিয়েছেন চিঠি। ২০১৬, ১৭ ও ১৮ সালের আর্থিক প্রতিবেদনে বড় ধরণের অসঙ্গতি পেয়েছেন তিনি। একই অভিযোগ করেছেন সাবেক ফুটবলার বাদল রায়ও । তিনিও বাফুফে বরাবর জমা দিয়েছেন নিজস্ব পর্যবেক্ষণ।

অভিযোগে বাদল রায় বলেন , ‘ গত নির্বাহী সভায় অডিট রিপোর্ট অনুমোদন করানোর একটা এজেন্ডা ছিল। অডিট রিপোর্ট প্রথম দেখাতেই মনে হয়েছে এতে অনেক ত্রুটি আছে। আরও এক সহ-সভাপতিসহ কয়েকজন বলেছি এটা ত্রুটিপুর্ণ এটা পাস করা যাবে না। আমাদের নোট অব ডিসেন্ট দেয়ার পরও এটা পাস করার ব্যবস্থা করেছেন। কিছু সদস্য আছে যারা এটা পাস করার জন্য পাগল হয়ে গেছেন। কি জন্য সেটা করেছেন সেটা আমি জানি না।’

তিনি আরও জানান , ‘ ফাইনান্স কমিটির সভায় আমি আপত্তি জানিয়েছিলাম। বলেছিলাম, এটা আগে আমাদের কাছে পাঠানো উচিত ছিল। ফাইনান্স কমিটিতে পাস হয়নি। সেখানে বলা হয়েছিল ফিফা ও এএফসিতে হিসাব পাঠানো হয়েছে।’

বাফুফে’র সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ এনে বাদল রায় বলেন , ‘ উনি (কাজী সালাউদ্দিন) কোন নিয়মের ধার ধারেন না । উনি নিজের ইচ্ছামত সব চালাচ্ছেন । এই বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে , সভাপতি সাহেব তার সেক্রেটারিকে হুমকি দিয়ে আমাকে ফোন করালো। কিন্তু আমি ঠিক করলাম দায়িত্ব শেষ না করে আমি বাফুফে ছেড়ে যাবো না। তখন আমি সাধারণ সম্পাদককে ডেকে টাকার কথা জিজ্ঞাসা করলাম। এমনকি ফিনান্স কমিটির চেয়ারম্যান সালাম সাহেবকেও জিজ্ঞাসা করলাম, তখন তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। ‘

বাদল রায় জানান , ‘ নিয়ম অনুযায়ী প্রতি বছর ফেডারেশনের এজিএম হবার কথা । কিন্তু সেটা হচ্ছে কই ? সালাউদ্দিন সাহেবের আমলে ফেডারেশন কোন নিয়মের মধ্যে চলছে না । ‘

বাদল রায় আরও জানান , ‘ আসলে নেতৃত্ব ঠিক না থাকলে এমন হবেই । একটা প্রতিষ্ঠানের একটা নীতিমালা থাকে, নিয়ম অনুযায়ী কোনকিছু না হওয়াকেই অনিয়ম বলা হয়। অডিট যারা করেছে তাদের নিয়েও প্রশ্ন আছে। অডিটররা এজিএমে অনুমোদিত নয় সবাই। এটা একটা বড় অনিয়ম।’

সবশেষে বাদল হুমকি দিয়েছেন, ‘শান্তিপূর্ণ ও যুক্তিযুক্ত ব্যাখ্যা না পাওয়া গেলে আমরা অবশ্যই কঠোর অবস্থান নেব।’

আহাস/ক্রী/০০৪