Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

ঘুরে দাঁড়াবার মিশনে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি বাংলাদেশ

আহসান হাবীব সুমন/ক্রীড়ালোক

বাংলাদেশের মাটিতে প্রথমবারের মত আয়োজিত হতে চলেছে ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজ । স্বাগতিকদের সাথে আফগানিস্তান আর জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ১৩ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) থেকে মাঠে গড়াচ্ছে এই সিরিজ । আসরের প্রথম দিনেই মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ আর জিম্বাবুয়ে ।

এই মুহূর্তে আইসিসি কর্তৃক নিষিদ্ধ থাকা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ফেভারিট বিবেচিত হবার কথা ছিল বাংলাদেশের । কিন্তু হালে বাংলাদেশের ক্রিকেট পরিস্থিতি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও দিচ্ছে না নিশ্চিত জয়ের নিশ্চয়তা । বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর শ্রীলঙ্কায় সিরিজ হার এবং সর্বশেষ নিজ দেশের চট্টগ্রামে আফগানিস্তানের কাছে টেস্ট ভরাডুবি , সব মিলিয়ে বাংলাদেশ যেন এই মুহূর্তে গভীর সমস্যার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে । এমন পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য একটি জয় খুব দরকার । জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সেই জয় আসবে কিনা সেটা বোঝা যাবে শুরু সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হতে চলা ম্যাচটির পরেই । এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে

জিম্বাবুয়ের চেয়ে টি-২০ র‍্যাংকিংয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ । জিম্বাবুয়ে আইসিসি টি-২০ র‍্যাংকিংয়ে আছে চতুর্দশ স্থানে আর বাংলাদেশ দশে । এই আসরের আরেক দল আফগানিস্তান আছে সাতে । অর্থাৎ সিরিজ জয়ে র‍্যাংকিং বিবেচনায় কিন্তু ফেভারিট আফগানিস্তান ।

জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশে এসে পেয়েছে প্রস্তুতি ম্যাচে জয় । মুশফিকুর রহিম আর সাব্বির রহমানদের নিয়ে গড়া বিসিবি একাদশকে তারা হারিয়েছে সাত উইকেটের ব্যবধানে । যদিও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান জানান , ‘ আমাদের প্রথম টি-২০ ম্যাচটা জিততে হবে। যদি আমরা সেটা করতে পারি, তবে সবকিছু নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে আসার সুযোগ থাকবে।’

আগামী বছরের অক্টোবরে টি-২০ বিশ্বকাপের আসর বসবে অস্ট্রেলিয়ায়। যথারীতি এবারও বাংলাদেশকে খেলতে হবে বিশ্বকাপের প্রাথমিক পর্বে। গত দুটি টি-২০ বিশ্বকাপেই প্রাথমিক পর্ব উতরে বাংলাদেশ ‘সুপার টেন’ পর্বে খেলেছে। কিন্তু সে পর্বে জিততে পারেনি একটি ম্যাচও। বাংলাদেশের সার্বিক টি-২০ রেকর্ডও ভীষণ বিবর্ণ। ৮৫ ম্যাচ খেলে সাফল্যের হার মোটে ৩১.৩২ শতাংশ, টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোর মধ্যে কেবল জিম্বাবুয়ের রেকর্ডই এর চেয়ে বাজে।

আগামী টি-২০ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশ দলে নেয়া হয়েছে বেশ কয়েকজন তরুণ মুখ । প্রথম দুই ম্যাচের দলে নেওয়া হয়েছে তরুণ পেসার ইয়াসিন আরাফাতকে। ফেরানো হয়েছে দুই স্পিনিং অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন ও মেহেদি হাসানকে। বিশেষ করে আফিফকে অনেক দিন থেকেই মনে করা হচ্ছে দারুণ সম্ভাবনাময়। তার জন্য দারুণ সুযোগ এই সিরিজ।

এদিকে জিম্বাবুয়ের অভিজ্ঞ অধিনায়ক হ্যামিলটন মাসাকাদজা কিন্তু বাংলাদেশকে হারাবার বিষয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী , ‘ বাংলাদেশকে অবশ্যই আমরা হারাতে পারি । কেননা ম্যাচের ফরম্যাট যত ছোট হবে, দলগুলোর ব্যবধান ততই কমে আসবে। টি-২০ এমন একটি ফরম্যাট, যেখানে যে কেউ একাই ম্যাচ টেনে নিতে পারে ও ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে। সব মিলিয়ে এই ফরম্যাটে বড় দল কিংবা ছোট দল বলে কিছু নেই।’

বাংলাদেশের পক্ষে আজ অভিষেক হতে পারে ইয়াসিন আরাফাত মিশুর । যদিও বিসিবি একাদশের হয়ে প্রস্তুতি ম্যাচে তার পারফর্মেন্স ভাল ছিল না । কিন্তু তবু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অভিষেক হতে পারে তার ।

একাদশে দেখা যেতে পারে টেস্ট সিরিজে দারুণ খেলা বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামকেও। প্রস্তুতি ম্যাচে জিম্বাবুয়ের কাছে হারলেও বিসিবি একাদশের হয়ে ব্যাটে বলে খারাপ করেননি আফিফ হোসেন ধ্রুব। একটি টি-২০ খেলা ১৯ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডারের একাদশে থাকা বলতে গেলে নিশ্চিত।

এদিকে তামিম ইকবালের অনুপস্থিতিতে লিটন দাস আর সৌম্য সরকারের উপর থাকছে ওপেন করার দায়িত্ব । প্রস্তুতি ম্যাচে রান পাওয়া সাব্বির তিনে নামবেন । পরবর্তী তিনজন যথারীতি সাকিব , মুশফিক আর মাহামুদুল্লাহ ।

বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন খেলার কথা সাত নাম্বারে। অফস্পিনিং অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন আটে, তাইজুল ইসলাম নয়ে। আর দুই পেসার মোস্তাফিজুর রহমান আর ইয়াসিন আরাফাত দশ এবং এগারো নাম্বারে।

তবে এসব কিছুই পরিবর্তিত হতে পারে ম্যাচের আগে কন্ডিশন বিবেচনায় ।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ : সৌম্য সরকার, লিটন দাস, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন, আফিফ হোসেন ধ্রুব, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান এবং ইয়াসিন আরাফাত।

আহাস/ক্রী/০০১