Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাংলাদেশকে বিদায় করার সব আয়োজন শেষ !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

চলমান আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের দারুণ গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মঙ্গলবার মুখোমুখি হচ্ছে ভারত আর বাংলাদেশ । এজবাস্টনে অনুষ্ঠিতব্য এই ম্যাচটি দুই দলের জন্যই দারুণ গুরুত্বপূর্ণ । এই ম্যাচে জিতলে ভারতের জন্য সেমি ফাইনালে খেলা নিশ্চিত হয়ে যাবে । অন্যদিকে বাংলাদেশ জিতলে টিকে থাকবে শেষ চারের আশা ।

অথচ এই ম্যাচের আগে বাংলাদেশের জন্য আছে একটি বড় দুঃসংবাদ । কারণ ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটিতে টিভি আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন আলিমদার , যিনি চিরকালীনভাবেই বাংলাদেশের সর্বনাশ করার জন্য ‘কুখ্যাত’ !

চলতি বিশ্বকাপেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে টিভি আম্পায়ার হিসেবে বাংলাদেশের বিপক্ষে একাধিক সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আলিমদার । ওপেনার লিটন দাসের একটি ক্যাচ মাটি থেকে নেন হজরতুল্লাহ শহিদী। মুজিব উর রহমানের বলে সেই ক্যাচটি যে মাটি থেকে নেয়া সেটা টিভি রিপ্লেতে বারবার দেখা যাচ্ছিল । কিন্তু সবাইকে অবাক করে , টিভি আম্পায়ার হিসেবে থাকা আলিমদার সেটাকে আউট বলে ঘোষণা দেন।

সেই বাংলাদেশের বিপক্ষে আবেদন হলেই যেন আউট দেয়ার পণ করে নেমেছিলেন দুই ইংলিশ আম্পায়ার । সাকিব আল হাসানকে একবার এলবি দেয়া হয় । যদিও রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান সাকিব । আবার সৌম্য সরকারের এলবি না হলেও রিভিউতে আউট দেয়া হয়েছে । অথচ বল প্যাডে লাগার আগে ব্যাটে লাগে । কিন্তু সেটা দেখার জন্য রিভিউতে ‘আলট্রা এজ’ প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রয়োজন মনে করেন নি আলিমদার ।

গত বছর এশিয়া কাপের ফাইনালে এই ভারতের বিপক্ষে লিটন দাসকে লাইনের উপর পা থাকা স্বত্বেও আউট দেন টিভি আম্পায়ার হিসেবে থাকা রড টাকার ! যে কারণে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করা লিটনকে ফিরতে হয় ১২১ রানে ।

এছাড়া ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে আলিমদাররা ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে বাংলাদেশের সর্বনাশ করেন একাধিক বিতর্কিত সিদ্ধান্ত দিয়ে । সেই ম্যাচে ৯০ ঘরে ব্যাট করছিলেন রোহিত শর্মা। সেই সময় রুবোল হোসেন তাঁর কোমরের উপর একটি ফুলটস বল করেছিলেন। রোহিত তা সামলাতে পারেননি। বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা যখন ক্যাচ ধরে আনন্দে লাফালাফি করছেন, তখনই দেখা যায় আম্পায়ার নো বল গিয়েছেন। নো বলের সিদ্ধান্ত ছিল লেগ আম্পায়ার আলিম দারের। সেখান থেকে রোহিত ১২৬ বলে ১৩৭ করে যান। ভারত তোলে ৬ উইকেটে ৩০০। জবাবে উমেশ যাদব ৪ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ ইনিংস শেষ করে দিয়েছিলেন ১৯৩ রানে। কিন্তু ঘটনা সেখানেই শেষ হয়নি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ওই নোবলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে আইসিসিতে অভিযোগ পর্যন্ত করেছিল।

এখানেই শেষ না , মাহামুদুল্লাহ রিয়াদকে অন্যায়ভাবে আউট দেয়া হয় সেই ম্যাচে । সুরেশ রায়না এলবিডব্লিউ ছিলেন। তবুও তাঁকে আউট দেওয়া হয়নি। এসব ঘটনায় বাংলাদেশকে অনেকটা জোর করেই বিদায় করা হয় আসর থেকে ।

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ হলেই কেন আলিমদার আর যে কোন ইংলিশ আম্পায়ার চলে আসেন , সেটা বোধগম্য না । এবারেও ফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে থাকছেন রুচিরা পাল্লিয়াগুরুগে ও মারাইস এরাসমাস।এই লংকান রুচিরা ২০১২ সালে ভারতের সাথে এশিয়া কাপের ফাইনালে যাওয়ার ম্যাচে সাকিবকে লিটনের মতই আউট দিয়েছেন । সেই রুচিরা এবারেও আছেন ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে । আলিমদার আর রুচিরা গংরা এবার কি করে সেটাই দেখার বিষয় ।

তবে অতীত অভিজ্ঞতা বলছে , আলিমদার বাংলাদেশকে হারাবার জন্য তার সর্বোচ্চ চেষ্টাই করবেন । আর এই ম্যাচে যেহেতু ভারতের জয় প্রয়োজন , সেই কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে যেতে পারে এক বা একাধিক সিদ্ধান্ত । অর্থাৎ ম্যাচের আগেই বাংলাদেশকে হারাবার জন্য যা যা করা দরকার , তার সব আয়োজন করে ফেলা হয়েছে ইতোমধ্যেই ।

এমন  অবস্থায় বাংলাদেশকে ম্যাচ জিততে খেলতে হবে ভারতের ১১ জনের বিপক্ষে নয় , সব মিলিয়ে ১৪ জনের বিপক্ষে । আর সেটা বাংলাদেশ করতে পারবে কিনা তা  বোঝা যাবে সময়েই । 

আহাস/ক্রী/০০২