Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

পেনাল্টি না দেয়ার আসল রহস্য ফাঁস করলেন রেফারি !

ক্রীড়ালক প্রতিবেদকঃ

শেষ হয়েছে ২০১৯ সালের কোপা আমেরিকা ফুটবল টুর্নামেন্ট । পেরুকে ফাইনালে হারিয়ে এবারের আসরের শিরোপা জিতেছে স্বাগতিক ব্রাজিল । অন্যদিকে আগে দুইবারের চ্যাম্পিয়ন চিলিকে হারিয়ে তৃতীয় স্থান পেয়েছে আর্জেন্টিনা ।

আনুষ্ঠানিকভাবে কোপা আমেরিকা শেষ হয়ে গেলেও পিছু ছাড়ছে না বিতর্ক । বিশেষ করে আসরের দুইটি ম্যাচ নিয়ে আর্জেন্টিনার দারুণ আপত্তিতে এখন দিন দিন যেন আরও জল ঘোলা হচ্ছে । সেমি ফাইনালে ব্রাজিলের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরেছে আর্জেন্টিনা । সেই ম্যাচে দুইটি পেনাল্টির সুযোগ নিয়ে এখনও সোচ্চার আলবেসেলেস্তেরা ।

ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচের পর আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি আর সার্জিও আগুয়েরোরা অভিযোগ করেন সেই ম্যাচের রেফারি রোডি জামব্রানোর বিপক্ষে । ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে আর্জেন্টিনার দুইটি পেনাল্টির আবেদনে সাড়া দেন নি রেফারি । এমনকি সুযোগ থাকা স্বত্বেও নেন নি ভিডিও রিভিউর (ভিএআর) সাহায্য ।

আর্জেন্টিনার তীব্র অভিযোগ , ম্যাচে ব্রাজিলকে জিতিয়ে দিতেই এমন করেন সেই দিনের রেফারি জামব্রানো ! এই নিয়ে ল্যাটিন আমেরিকার ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা ‘কনমেবল’ এও অনুযোগ করেছে আর্জেন্টিনার ফুটবল ফেডারেশন । যদিও তাতে কোন লাভ হয় নি ।

এদিকে ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনা ম্যাচের আলোচিত রেফারি জামব্রানো মুখ খুলেছেন এতদিনে । তিনি জানিয়েছেন , ‘ প্রথম ঘটনাটি ছিল সাধারণ ফাউল, আর দ্বিতীয়টি ছিল বৈধ চ্যালেঞ্জ। ‘

প্রথম ঘটনায় আর্জেন্টিনার ম্যানসিটি তারকা সার্জিও আগুয়েরোকে বক্সের ভেতর ফেলে দেন দানি আলভেজ। দ্বিতীয় ঘটনায় নিকোলাস ওটামেন্ডিকে বক্সের ভেতর কনুই দিয়ে গুঁতো দেনে আর্থার।

ইকুয়েডরের এক রেডিওতে দেয়া সাক্ষাৎকারে বিতর্কিত সিদ্ধান্তগুলোর জন্য জামব্রানো সরাসরি দায় চাপিয়েছেন ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারির উপর।

তিনি জানান , ‘ ওটামান্ডি আর্থারের ধাক্কায় নয় বরং নিজেও চ্যালেঞ্জ করতে গিয়েছিল বলে পড়ে যায়। ভিএআর রিপ্লে দেখে জানায় এটা ৫০/৫০ ফাউল। ওরা এটাকে পেনাল্টির মত ফাউল মনে করেনি এবং আমাকে ভিডিও রিপ্লে দেখতেও বলেনি। ওদের উচিত ছিল মাঠের স্ক্রিনে দেখার জন্য আমাকে বলা। ‘

যদিও ম্যাচের কয়েকদিন পর ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারি লেওদান গঞ্জালেস এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, তিনি সামব্রানোকে ভিডিও দেখার জন্য বলেছিলেন। সামব্রানো বরং দেখতে চাননি !

মেসির অভিযোগ সম্পর্কে রেফারি জানান , ‘ আমার ওর সাথে কোন সমস্যা নেই। ওর মন্তব্য আমাকে অবাক করেছে। কিন্তু ভিন্নমত সবারই থাকতে পারে। ‘

সেমিফাইনালের পর তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচের রেফারিং নিয়েও কড়া সমালোচনা করেছেন মেসি। চিলির বিপক্ষে ম্যাচটিতে তাকে বিতর্কিত লাল কার্ড দেয়া হয়। সেই ঘটনায় রেফারির সমালোচনা করার পাশাপাশি লাতিন আমেরিকান ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা কনমেবলেরও তীব্র সমালোচনা করেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। ওই ঘটনায় মেসি আন্তর্জাতিক ফুটবলে বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে পারেন বলে জানাচ্ছে ফুটবলের খবরদাতা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো।

আহাস/ক্রী/০০৪