Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

রোনালদোর সামনে সেই স্পেন !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

চলতি অক্টোবর মাসে আবারও সরগরম হতে চলেছে আন্তর্জাতিক ফুটবলের মাঠ । আগামী ১০ দিনের মধ্যে একই সাথে মাঠে নামতে চলেছে ইউরোপ আর ল্যাটিন আমেরিকার বড় দলগুলো । একদিকে শুরু হচ্ছে ল্যাটিন আমেরিকার বিশ্বকাপ বাছাই , অন্যদিকে চলবে উয়েফা নেশন্স লীগের উত্তেজনা । সব মিলিয়ে আগামী অন্তত দশটি দিন আন্তর্জাতিক ফুটবলের দর্শকদের সময় কাটবে উৎসবের আমেজে ।

বুধবার (৭ অক্টোবর) মুখোমুখি লড়াইয়ে নামছে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল আর স্পেন । সাবেক বিশ্ব আর ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন স্পেনের বিপক্ষে পর্তুগাল খেলবে নিজেদের মাঠে । লিসবনের হোসে আলভেলাদে স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত পৌনে একটায় ।
পর্তুগালের বিপক্ষে স্পেনের পরিসংখ্যান দারুণ সমৃদ্ধ । এখন পর্যন্ত দুই দলের ৩৬ বারের মোকাবেলায় স্পেনের জয় ১৭ ম্যাচে । হেরেছে মাত্র ছয়বার । এছাড়া ১৩টি ম্যাচ শেষ হয়েছে অমিমাংসিতভাবে । তবে দুই দলের সর্বশেষ তিন দেখায় পর্তুগালকে হারাতে পারে নি স্পেন । সর্বশেষ ২০১০ সালের বিশ্বকাপে স্পেন ১-০ হারিয়েছিল পর্তুগালকে ।

অন্যদিকে পর্তুগালের সাম্প্রতিক ইতিহাস স্পেনের বিপক্ষে আশাবাদী হওয়ার জন্য যথেষ্ট । ২০১০ সালের নভেম্বরে প্রীতি ম্যাচে পর্তুগাল ৪-০ গোলে হারিয়েছেন স্পেনকে । পরের দুই দেখায় ড্র হয়েছে ম্যাচ । ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে শেষবার দুই দলের দেখা হয়েছিল । গ্রুপ পর্বের ম্যাচটি শেষ হয়েছিল ৩-৩ গোলে । সেই ম্যাচে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো করেছিলেন দুর্দান্ত এক হ্যাট্রিক । স্পেনের বিপক্ষে আগে কখনও গোলের দেখা পান নি রোনালদো ।

আগামী সপ্তাহে উয়েফা নেশন্স লীগের প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে মাঠে নামাছে স্পেন আর পর্তুগাল । সেই কারণেই নিজেদের ঝালিয়ে নিতে প্রীতি ম্যাচটি পাচ্ছে বাড়তি গুরুত্ব । উয়েফা নেশন্স লীগে লীগ-১ এর গ্রুপ-‘সি’র প্রথম দুই ম্যাচেই পর্তুগাল জয় পেয়েছে ক্রোয়েশিয়া আর সুইডেনের বিপক্ষে । চলতি সপ্তাহে তাদের খেলা বর্তমান বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স আর সুইডেনের বিপক্ষে । চার গ্রুপ থেকে একটি করে দল সেমি ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ পাবে । যে কারণে প্রতিটা ম্যাচ এখানে গুরুত্বপূর্ণ ।

অন্যদিকে স্পেন ‘ডি’ গ্রুপের প্রথম দুই ম্যাচে পেয়েছে চার পয়েন্ট । প্রথম ম্যাচে জার্মানির সাথে ১-১ গোলে ড্র করার পর লা রোজা ফুরিওরা হারিয়েছে ইউক্রেইনকে ৪-০ গোলে । তাদের আগামী দুই ম্যাচ সুইজারল্যান্ড আর ইউক্রেইনের বিপক্ষে ।

স্পেনের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে দারুণ ছন্দে আছে পর্তুগাল । ফার্নান্দো স্যান্তসের শিষ্যরা সর্বশেষ চার ম্যাচে পেয়েছে টানা জয় । আর শেষ হেরেছিল গত অক্টোবরে ইউক্রেইনের কাছে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বে । নিজেদের শেষ ১০ ম্যাচে ৯টি জয় পেয়েছে পর্তুগাল ।

দারুণ সব প্রতিভা নিয়ে পর্তুগাল এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম ব্যালেন্সড দল । ডিফেন্সে হোয়াও ক্যান্সেলো , হোসে ফন্তে , মারিও রুই , নেলসন সেমেদো , রাফায়েল গুরেইরো , রুবেন ডিয়াস আর অভিজ্ঞ পেপেরা এখন আস্থার প্রতীক । যে যখন মাঠে নামছেন , পর্তুগীজ ডিফেন্স হয়ে উঠছে দুর্ভেদ্য ।

মধ্যমাঠেও স্যান্তসের হাতে রয়েছে অনেক বিকল্প । ব্রুনো ফার্নান্দেজ , হোয়াও মুতিনিও , রেনাটা সাঞ্চেজ , রুবেন নেভেস আর উইলিয়াম কারভালহোদের উপর ভরসা না রেখে উপায় নেই ।

আক্রমণে অবশ্যই ভরসা সেই রোনালদো । ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক ফুটবলে দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে গোলের সেঞ্চুরি করা ‘আধুনিক ফুটবলের সম্রাট’ সর্বকালের সেরা হবার অপেক্ষায় । গোলের হিসেবে তার আগে আছেন কেবল ইরানের সাবেক ফরোয়ার্ড আলী দায়িই । ১০১ গোল নিয়ে রোনালদো অপেক্ষায় আলী দায়িইর ১০৯ গোলের রেকর্ড ভাঙ্গার । যা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার বলেই মনে হচ্ছে ।

যদিও হোয়াও ফেলিক্স , বার্নাড সিলভা কিংবা আন্দ্রে সিলভারা এখনও ঠিক সেই অর্থে রোনালদোর যোগ্য সঙ্গী হয়ে উঠতে পারে নি । তাদের খেলায় বড্ড বেশী ধারাবাহিকতার অভাব । অবশ্য পর্তুগালের ভবিষ্যৎ ফরোয়ার্ড হিসেবে দিয়াগো জোতার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ দেখছেন অনেকেই । এছাড়া আছেন ২০ বছরের তরুণ ট্রিন্সাও । সব মিলিয়ে পর্তুগাল সত্যি এখন এক মনোমুগ্ধকর দল ।

অন্যদিকে দ্বিতীয় দফায় স্পেনের কোচ হয়ে আসা লুইস এনরিকে আস্থা রাখছেন তরুণদের উপর । দলে আনসু ফাতিহ আছেন । মাত্র ১৭ বছর বয়সেই যিনি বার্সার হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন । এছাড়া মাইকেল মেরিনো , এদামা ত্রাওরে , ড্যানি কেবালোস , সার্জিও রেগুইলনদের বয়স পঁচিশের নীচে ।

সেপ্ন দলওটাও আছে দারুণ ফর্মে । নিজেদের সর্বশেষ পাঁচটি ম্যাচে তারা হারে নি । জিতেছে তিনটি আর ড্র করেছে দুইটি ম্যাচে । এই পাঁচ ম্যাচে তারা গোল করেছে ১৮টি ! ২০১৮ সালের নভেম্বরে নেশন্স লীগে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ২-৩ গোলে হেরেছিল স্পেন । সেটাই ছিল আন্তর্জাতিক ফুটবলে তাদের শেষ হার ।

অর্থাৎ প্রায় দুই বছর ধরে অপরাজিত পর্তুগালের জন্য স্পেন নিঃসন্দেহে হতে চলেছে কঠিন পরীক্ষা । তবে সেই পরীক্ষায় উৎরে যাবার সক্ষমতা ইউরোপের সেলেকাওদের আছে , সেটাও সন্দেহ নেই । সব মিলিয়ে স্পেন আর পর্তুগালের ম্যাচটি উপভোগ্য হবে সেটা বলাই বাহুল্য ।

স্পেনের সম্ভাব্য একাদশঃ ডেভিড ডি গিয়া , নাভাস , সার্জিও র‍্যামস , তোরেস , গায়া , রদ্রি , ক্যাবেলোস , রুইজ , ত্রাওরে , রদ্রিগো , ফাতি

পর্তুগাল সম্ভাব্য একাদশঃ প্যাট্রিসিও , সেমেদো , ডিয়াস , গুরেইরো , পেরেইরা , মুতিনিও , ফার্নান্দেজ , পোডেন্স , ফেলিক্স , জোতা

আহাস/ক্রী/০০১