Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

পাকিস্তানে কেনো এত দুর্দান্ত পেসার?

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদক:

ভয়ংকর গতি। আবার তার সাথে স্লোয়ার। আর আছে ইনসুইং বা আউট সুইংয়ের দুর্দান্ত রসদ। এরপরে থাকছে ইয়র্কারের সাথে কাটার। পাকিস্তানি পেস বোলারদের বৈশিষ্ট্যই হয়ে গেছে এমন। ভাবা হয় উপমহাদেশ হোক বা ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া হোক সব জায়গায় দাপটের সাথে সামনে থাকে পাকিস্তানি পেসাররা।

পাকিস্তান ক্রিকেট বললেও তারকাদের মাঝে পেসাদের কথাটাই আপনার মাথায় আগে কড়া নাড়বে। বলা চলে, যুগে যুগে গতি-সুইংয়ের চোখ-ধাঁধানো ঝলক দেখিয়ে যাওয়া পাকিস্তান সমৃদ্ধ পেসারে। পেসারদের কথা আসতে কল্পনাতেই ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনিস, ইমরান খান, শোয়েব আখতার…নামগুলো ভেসে উঠবে আপনার অবচেতন মনে।

পাকিস্তানের হয়ে বিশ্বের দ্রুততম বল করে দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে রেকর্ড আগলে রেখেছেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস খ্যাত শোয়েব আখতার। ২০০৩ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬১.৩ কিলোমিটার বেগে বল করেছিলেন পাকিস্তানের গতি দানব। রিভার্স সুইংকে শিল্পের মর্যাদা দেওয়া ইমরান খান, কিংবা সেটির প্রথম ‘আবিষ্কারক’ সরফরাজ নওয়াজ,তারপর মুশতাক আহমেদ ও সাকলায়েন মুশতাক অথবা পাকিস্তানের পেস বোলারদের অন্যতম অধ্যায় ফজলে মাহমুদ; আরও কত কত তারকা বোলার। নব্বই দশকের বিখ্যাত ফাস্ট বোলিং জুটি ‘টু ডব্লুজের’ কথা নিশ্চয়ই মনে আছে আপনার। ‘ডব্লু’ আদ্যক্ষরে নাম হওয়ায় পাকিস্তানি ফাস্ট বোলার ওয়াসিম আকরাম আর ওয়াকার ইউনুসকে একসাথে ডাকা হত ‘টু ডব্লুজ’। তবে পাকিস্তানেই কেন এমন সব দুর্দান্ত খেলোয়াড়ের জন্ম? এমন প্রশ্নের উত্তরে কারণ খুঁজে পেয়েছেন ইংলিশ ক্রিকেটার মাইক আথারটন।

ইংলিশদের সাবেক অধিনায়ক আথারটন বিশ্লেষন করে বলেন, ‘পাকিস্তান অবশ্যই অনেক অসাধারণ ব্যাটসম্যান পেয়েছে। তবে আমার মনে হয় সাম্প্রতিক সময়ে ওদের বোলিংয়ের শক্তি আরও গভীরতা, বিশেষ করে উইকেট নেওয়ার মতো এত বোলার এসেছে-সেটা রহস্যময় স্পিনারই হোক বা দারুণ পেস বোলার, এটাই ওদের আলাদা করে রেখেছে।’
এত দারুণ সব বোলার পাকিস্তান কেন পায়, সে ব্যাখ্যায় আথারটন বললেন, ‘আমি ঠিক জানি না পাকিস্তান কীভাবে এত অসাধারণ সব বোলারের জন্ম দিয়েছে। আমার মনে হচ্ছে, এটার সঙ্গে পাকিস্তানের অবকাঠামোগত দৈন্যের একটা সম্পর্ক থাকতে পারে। ’

তবে আথারটনের চিন্তা-চেতনার বাইরে যে পাকিস্তান সব সময় পেস বোলিংয়ের দিকে দুর্দান্ত তা তাদের পরিসংখ্যানের দিকে তাকালে বোঝা যাবে। বর্তমানেও পেসারদের দ্বারা সমৃদ্ধ পাকিস্তান ক্রিকেট দল। আছেন অভিজ্ঞ ওহাব রিয়াজ, তরুণ শাহিন শাহ আফ্রিদি, হাসান আলী, আমির খান,মোহাম্মদ আব্বাসের মতো দুর্দান্ত বোলাররা। মাত্র সতেরো বছরের পেসার নাসিম শাহও অসাধারন,ইতিমধ্যে করে ফেলেছেন টেস্টে হ্যাটট্রিক। মোহাম্মদ হাসনাইন ও মুসা খান ঘন্টায় ১৪০-১৫০ কিলোতে বল ছুড়তে পারেন। জোরের সঙ্গে বল করতে পারার সক্ষমতার কারণে পেসকেই অস্ত্র মানেন হাসনাইন। ১৯ বছর বয়সী পেসার বলেন,‘আমি ভীষণ রকম শিহরিত। আমার গতি দিয়েই ব্যাটসম্যানদের কাঁপন ধরাতে চাই। আমি জোরে বল করতে ভালোবাসি, আর এটাই আমার অস্ত্র!’

হয়ত ক্রিকেটে পাকিস্তান দলের সব পেসারেরই প্রধান অস্ত্র বুঝি পেস বা গতি। আর গতির সাথে তো সুইং বা ইয়র্কার যদি পরে যায় তাহলে বিশ্বের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানকে প্যাভিলিয়ানের পথ দেখানো অসম্ভব কিছু না!

নিহে/ক্রী/০০৩