Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

আবারও প্রেসিডেন্ট’স কাপ আয়োজনের পক্ষে সুজন

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদক:

করোনা সংকটের কারণে চলতি বছরের মার্চ থেকে দেশের ক্রিকেট কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়ে। করোনার প্রকোপের মধ্যেও ক্রিকেটকে মাঠে ফেরাতে মরিয়া বিসিবি নানা কর্মসূচি গ্রহন করে। সেই ধারাবাহিক উদ্যোগে এবছর প্রথমবারের মতো বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছে। তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) গেম ডেভলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন মনে করেন প্রতি বছরই বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ আয়োজন করা উচিত।

সাবেক বাংলাদেশি খেলোয়াড় সুজন মনে করেন এই জাতীয় আসর তরুণদের বেশ সহায়ক হবে। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি, এই জাতীয় টুর্নামেন্টের বারবার আয়োজন করা হলে আমাদের তরুণদের ভাল হবে। আমাদের সিনিয়ররা এখন অনেক অভিজ্ঞ। বিশ্বের অনেক খেলোয়াড়দের চেয়েও অভিজ্ঞ। মুশফিকুর, রিয়াদ, তামিম এখানে খেলছেন, মাশরাফি ও সাকিব এখানে নেই। দুজনে যদি থাকতেন তবে তরুণ খেলোয়াড়রা তাদের কাছ থেকে আরও অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারত। এটি ইতিবাচক দিক।’

বিসিবি প্রেসিডেন্স কাপে তরুণ খেলোয়াড়দের প্রস্তুত ও প্রমাণ করার জন্য তিনি বলেন, সিনিয়র খেলোয়াড়দের সাথে ড্রেসিংরুম ভাগ করে নিতে পারায় তরুণ খেলোয়াড়রা অনেক কিছুই শিখছে; যা টুর্নামেন্টের জন্য একটি ভালো দিক।

মাহমুদ বলেন, ‘ছেলেদের মাঠে ফেরানোরই আমাদের লক্ষ্য ছিল। এটি আমাদের দুর্দান্ত সাফল্য। তরুণরা পারফর্ম করছে, বড়দের সাথে কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে খেলছে, এটি দেখতে ভালো লাগছে। তারা ড্রেসিংরুম ভাগ করে নিচ্ছে, অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিচ্ছে, তাই আমার মনে হয় এটি আমাদের জন্য একটি বড় অর্জন।’

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ১১ অক্টোবর থেকে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে চলছে তিন দলের প্রস্তুতিমূলক ওয়ানডে টুর্নামেন্ট। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও নাজমুল হোসেন শান্ত আছেন নেতৃত্বে। দলগুলোর নামকরণ করা হয়েছে তাদের নামে। জাতীয় দল ও এর আশেপাশে থাকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে এই টুর্নামেন্টে খেলছেন একঝাঁক তরুণ ও অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী যুবা।

প্রতিটি দল একে অপরকে দুবার করে মোকাবিলা করবে। ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৩ অক্টোবর। বৃষ্টি শঙ্কায় প্রতি ম্যাচের জন্যই রাখা হয়েছে রিজার্ভ ডে। সবগুলো ম্যাচই হবে দিবারাত্রির। খেলা শুরু হবে দুপুর ১টা ৩০ মিনিট থেকে।

নিহে/ক্রী/০০৫