Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

ফেঁসে গেছেন সুয়ারেজ !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

২০২০-২১ মৌসুমে লুইস সুয়ারেজকে চান না বার্সেলোনার নতুন রোনাল্ড কোম্যান । অন্তত বার্সেলোনার হয়ে নিয়মিত একাদশে সুয়ারেজের জায়গা হচ্ছে না এটা স্পষ্ট বলে দিয়েছেন বার্সার কোচ । কথা আর কাজে মিল রেখে বার্সেলোনার প্রস্তুতি ম্যাচে সুয়ারেজকে স্কোয়াডে রাখেন নি কোম্যান ।

বার্সায় নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে চরম অনিশ্চয়তায় থাকা সুয়ারেজ চাইছেন নতুন ঠিকানায় পাড়ি জমাতে । উরুগুয়ানকে ফরোয়ার্ডকে পাওয়ায় দারুণ আগ্রহী ছিল ইটালির চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস । দুই পক্ষের কথাবার্তাও অনেকদূর এগিয়েছিল বলে জানিয়েছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ।

তবে সর্বশেষ খবর হচ্ছে , শেষ পর্যন্ত হয়ত জুভেন্টাসে যাওয়া হচ্ছে না সুয়ারেজের । ইটালির ফুটবল ফেডারেশনের নিয়ম বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তার জন্য ।

ইটালির দলবদলে ইউরোপের নাগরিক নন, এমন সর্বোচ্চ দুজন খেলোয়াড় কিনতে পারেন। জুভেন্টাস এই দলবদলে এরই মাঝে এমন দুজন খেলোয়াড় নিয়ে ফেলেছে— আর্থার মেলো ও ওয়েস্টন ম্যাকেনি। তাই সুয়ারেজকে এ ক্লাবে যেতে ‘ইউরোপিয়ান’ খেলোয়াড় হিসেবে প্রমাণ করতে হবে।

ইউরোপিয়ান খেলোয়াড় কোটায় থাকতে হলে সুয়ারেজকে ভাষা পরীক্ষায় পাশ করতে হবে। ‘বি ওয়ান’ পরীক্ষায় অন্তত ৮ পেতে হবে তাকে। এই পরীক্ষায়  ইটালিয়ান  ভাষায় যোগাযোগ করতে পারার ক্ষমতা প্রকাশ করতে হয়। তবে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম আরএসিওয়ানের খবর, পরীক্ষায় পাশ করে  ভিসা পেতে পেতে অক্টোবরের ছয় তারিখ পার হয়ে যাবে। আর অক্টোবরের পাঁচ তারিখেই শেষ হবে এ মৌসুমের গ্রীষ্মকালীন দলবদলের সময়সীমা।

এদিকে বার্সার নতুন পরিচালক র‍্যামন প্লানেস জানিয়েছেন, সুয়ারেজকে হুট করে বিদায় করতে দেওয়ার কথা ভাবছেন না তারা।

প্ল্যানেস জানিয়েছেন ,  ‘সুয়ারেজ সব সময়েই আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ একজন খেলোয়াড়। ওদিন যা বলছিলাম, আমাদের অবশ্যই সেসব খেলোয়াড়দের যথার্থ সম্মান করতে হবে যারা আমাদের ক্লাবকে এত কিছু দিয়েছে। গত মৌসুমের শেষ দিকে যা হয়েছে তাতে এটা বোঝা গেছে যে বার্সায় পরিবর্তন আসাটা কতটা জরুরি। একজন নতুন কোচ ও নতুন চিন্তাধারার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে হচ্ছে আমাদের। আমরা সেগুলো নিয়ে কাজ করছি। ক্লাবের খেলোয়াড় ও তাঁদের চুক্তিকে সম্মান করতে হবে আমাদের।’

বার্সার সাথে এখনও চুক্তি আছে সুয়ারেজের । চুক্তির আগে সুয়ারেজকে নিজেদের ইচ্ছেয় বিদায় দিতে হলে উল্টো ১৪ মিলিয়ন ইউরো ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বার্সার। আবার সুয়ারেজকে রাখলে দিতে হবে উচ্চমূল্যের বেতন। অথচ এই মুহূর্তে বার্সার অর্থনৈতিক অবস্থা সঙ্গিন। এমন অবস্থায় বার্সা কি করবে সেটাই দেখার বিষয় ।

আহাস/ক্রী/০০৪