Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

অনিশ্চয়তার মুখে থাকা শ্রীলংকা সফরে বিশাল স্কোয়াড

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বাংলাদেশের আসন্ন শ্রীলংকা সফর নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছেই না । সৃষ্টি হচ্ছে একের পর এক বাঁধা । সর্বশেষ শ্রীলংকা থেকে পাঠানো স্বাস্থ্য-নীতি নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে নতুন জটিলতা । যদিও এর মধ্যেই বাংলাদেশ দলের বিশাল স্কোয়াডের তালিকা প্রায় প্রস্তুত , যারা অপেক্ষায় রয়েছে বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড) থেকে অনুমতি পাওয়ার ।

তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে গত জুলাইয়ে শ্রীলংকা যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলের । কিন্তু করোনা-মহামারীর কারণে সেই সিরিজ স্থগিত হয়ে যায় । চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে বাংলাদেশের যাওয়ার কথা লংকা দ্বীপে ।

এদিকে সফরের আগে শ্রীলংকা থেকে এসেছে স্বাস্থ্য-নীতি । করোনা ভাইরাসের কথা মাথায় রেখে কোয়ারেন্টাইন পিরিয়ড, অতিথিদের বহর এবং জৈব সুরক্ষা বলয় নিয়ে বিস্তারিত তথ্য বিসিবিকে পাঠিয়েছে তাঁরা। নতুন প্রস্তাব তৈরি করেছে শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়েছে , ক্রিকেটারদের ১৪ দিনের কোয়ান্টাইন বাধ্যতামূলক। এ সময়ে হোটেলেই কাটাতে হবে অতিথিদের। ১৪ দিনে তিনবার করোনা পরীক্ষা হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ দলের বহর হতে হবে ৩০ জনের এবং একবারেই ৩০ জনকে শ্রীলঙ্কায় পৌঁছতে হবে।

যদিও এমন প্রস্তাবে আপত্তি আছে বিসিবি’র । বাংলাদেশের বোর্ডের ইচ্ছা , ক্রিকেটাররা সর্বোচ্চ সাতদিনের কোয়ারেন্টাইন পালন করবে । কিন্তু শ্রীলংকা তাতে রাজী না ! যার ফলে এখন ঝুলে গেছে টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর। আদৌ সফরটি হবে কি না, এমন সংশয়ও সৃষ্টি হয়েছে।

শ্রীলংকা থেকে পাওয়া নতুন প্রস্তাবের বিষয়ে নিজেদের অবস্থান জানিয়ে বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী জানিয়েছেন , ‘আমরা শ্রীলঙ্কা থেকে একটা গাইডলাইন পেয়েছি। আপাতত সেটা নিয়েই আলোচনা হচ্ছে। শিগগিরই সিরিজের ভবিষ্যত চূড়ান্ত হবে।’

বিসিবির বিশেষ সূত্র থেকে জানা গেছে, কোচিং স্টাফ ও খেলোয়াড়দের থেকেই কোয়ারেন্টাইন নিয়ে আপত্তি এসেছে। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের পর এক সপ্তাহ অনুশীলন শেষে কোনোভাবে-ই তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে রাজি নয় খেলোয়াড়রা। এমনিতেই দেশের বাইরে টেস্ট। আবার টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ বাড়তি গুরুত্ব বহন করে। সেখানে শতভাগ প্রস্তুতি না নিয়ে মাঠে নামতে রাজি নয় খেলোয়াড়রা।

শ্রীলংকা সফর এখনও যেহেতু আনুষ্ঠানিকভাবে বাতিল হয় নি , সেই কারণে বিসিবি নিজেদের প্রস্তুতি সেরে রেখেছে । এই লক্ষ্যে ২৭ সদস্যের স্কোয়াডের জন্য সরকারের অনুমতি (জিও বা অনাপত্তি পত্র) নিয়ে রেখেছে বিসিবি । যদিও সফরে যাবে ২০-২১ জনের স্কোয়াড । বাকীরা থাকবেন রিজার্ভ তালিকায় । যাতে যে কোন প্রয়োজনে যে কোন মুহূর্তে দলের সাথে যোগ দিতে পারেন তারা ।

শুধু খেলোয়াড় না , শ্রীলংকা সফরের জন্য ১৫ জন কর্মকর্তার জিও করা হয়েছে । অর্থাৎ মোট ৪২ জনের বহরের জন্য সরকারী অনুমতি নিয়েছে বিসিবি । যদিও লংকানরা আবার ত্রিশ জনের মধ্যে রাখতে বলেছে স্কোয়াডের সদস্য সংখ্যা ।

এখানেও তাই আছে সমস্যা । এখন দেখার বিষয় , শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফর হয় কি না। বিসিবির প্রধান নির্বাহীর দাবি, চলতি সপ্তাহেই আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত জানাবে শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশ স্কোয়াডঃ

১. মুমিনুল হক, ২, লিটন কুমার দাস, ৩. মোহাম্মদ মিঠুন, ৪. মুশফিকুর রহীম, ৫. মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ৬. তামিম ইকবাল, ৭. সৌম্য সরকার, ৮. মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, ৯. আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী, ১০. মোস্তাফিজুর রহমান, ১১. রুবেল হোসেন, ১২. মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, ১৩. মেহেদী হাসান মিরাজ, ১৪. নাঈম হাসান, ১৫. ইমরুল কায়েস, ১৬. তাইজুল ইসলাম, ১৭. এবাদত হোসেন চৌধুরী, ১৮. সাদমান ইসলাম, ১৯. মোহাম্মদ আল আমিন হোসেন, ২০.সানজামুল ইসলাম, ২১. নাজমুল হোসেন শান্ত, ২২.হাসান মাহমুদ, ২৩. মেহেদী হাসান, ২৪. শফিউল ইসলাম, ২৫. ইয়াসির আলি চৌধুরী, ২৬. তাসকিন আহমেদ, ২৭. কাজী নুরুল হাসান সোহান।

আহাস/ক্রী/০০৪