Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

সিপিএলে খেলা হচ্ছে না তাদের

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

আগামী ১৮ আগস্ট থেকে মাঠে গড়াচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া ফ্রেঞ্চাইজি টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্ট সিপিএল (ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট লীগ) । করোনা মহামারীর কারণে ছয় আসরে থাকছে কোন হোম এন্ড এওয়ে ম্যাচ । বরং সিঙ্গেল লীগ পদ্ধতিতে আসরের সবগুলো ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ত্রিনিদাদ এন্ড টোবাগোর দুইটি স্টেডিয়ামে । সিপিএলের অষ্টম আসরের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ১০ সেপ্টেম্বর । অর্থাৎ মাত্র ২২ দিনে অনুষ্ঠিত হবে আসরের ৩৩টি ম্যাচ ।

আসন্ন সিপিএলে বাংলাদেশের কোন ক্রিকেটার দল পান নি । যদিও শোনা গেছে , তামিম ইকবালকে খেলার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল কোন একটি ফ্রেঞ্চাইজি থেকে । কিন্তু করোনা পরিস্থতি বিবচনায় তিনি সেটা গ্রহণ করেন নি । একইভাবে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান । তিনি দেশীয় ক্রিকেটের কথা ভেবে সিপিএলে যাচ্ছেন না ।

এদিকে সুযোগ পেয়েও সিপিএলে খেলা হচ্ছে না পাঁচ দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারের । তারা হলেন – রাসি ফন ডার ডাসেন, তাবরাইজ শামসি, আইনরিখ নর্কিয়া, রাইলি রুশো ও কলিন ইনগ্রাম। মুলত নির্ধারিত সময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে পৌছুতে না পারায় খেলা হচ্ছে না তাদের ।

সিপিল আয়োজকরাই চাচ্ছিলেন, খেলোয়াড়রা যেন ১ আগস্টের মধ্যেই ত্রিনিদাদে পৌঁছে যান। কারণ টুর্নামেন্ট শুরুর আগে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের বিষয়টিও মাথায় রাখা হয়েছে। টুর্নামেন্ট শুরু হবে ১৮ আগস্ট। সে জন্য লন্ডনে বিশেষ ভাড়া করা বিমানের ব্যবস্থাও রেখেছিল আয়োজকরা। যাতে ফ্লাইটজনিত কোনও ঝামেলায় না পড়তে হয়। কিন্তু প্রোটিয়াদের বেলায় ঝামেলা হয়েছে সেখানেই। আগে লন্ডন তো পৌঁছাতে হবে? করোনাকালে ফ্লাইট সংখ্যা কমে যাওয়ায় যথা সময়ে ভ্রমণের ব্যবস্থাও করা যাচ্ছে না। তার ওপর ভিসা প্রসেসিংসহ সরকারি অনুমতিরও প্রয়োজন রয়েছে। সব মিলিয়ে যুক্তরাজ্যে সময় মতো পৌঁছানোর ব্যবস্থা করতে পারতো না প্রোটিয়া ক্রিকেটাররা।

এমন অবস্থায় সিপিএলে দক্ষিণ আফ্রিকার তাহির জামানই শুধু অংশ নিচ্ছেন । এতদিন তিনি আটকে ছিলেন পাকিস্তানে। পিএসএল খেলতে গিয়ে সেখানেই আটকে পড়েছিলেন। এখন পাকিস্তান ছাড়ার সুযোগ পাওয়ায় তার সিপিএল খেলতে যেতে কোনও ঝামলোয় পড়তে হচ্ছে না।

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাকালে কঠোর বিধি নিষেধই আরোপ করা হয়েছে। সব প্রদেশের ও আন্তর্জাতিক সীমান্ত এখন বন্ধ। সংক্রমণ পরিস্থিতি উন্নতি হলেই সেপ্টেম্বরে সফরের বিধি নিষেধের কড়াকড়ি শিথিল করা হবে। তার মানে এই দাঁড়ালো আইপিএলেও প্রোটিয়া ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণ নির্ভর করছে আনুষঙ্গিক বিষয়ের ওপর!

আহাস/ক্রী/০০৪