Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

রিয়েল মাদ্রিদের ঐতিহাসিক ভুল !

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

পেশাদার ফুটবল মানেই নানা চমক । এখানে প্রতি নিয়ত এমন সব ঘটনা ঘটে , যা আগে থেকে আঁচ করা মুশকিল । আবার আঁচ করা গেলেও সেই ঘটনার মর্ম বোঝা হয়ে দাঁড়ায় অসম্ভব । সম্প্রতি আশরাফ হাকিমিকে পাকাপাকিভাবে ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে রিয়েল মাদ্রিদের সিদ্ধান্তে এমনই বিস্ময় প্রকাশ করছেন অনেকে । তাদের ধারণা , মরক্কোর আন্তর্জাতিক ফুটবলার হাকিমিকে ছেড়ে বড় ধরণের ভুল করতে চলেছে লস ব্লাংকোসরা ।

রিয়েল মাদ্রিদ একাডেমী দলের সাথে বেড়ে ওঠা হাকিমি যোগ দিচ্ছেন ইটালিয়ান জায়ান্ট ইন্টার মিলানে । তাকে পেতে ৪০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করছে ইন্টার । ইতোমধ্যেই ইটালির ক্লাবটিতে মেডিক্যাল পরীক্ষা শেষ হয়েছে হাকিমির । জানা গেছে , আপাতত পাঁচ বছরের চুক্তিতে আগামী মৌসুম থেকে ইন্টারের জার্সিতে মাঠ মাতাবেন হাকিমি ।

হাকিমিকে ছেড়ে দেয়ায় বিস্ময়ের কারণ কি ? আসলে গত কয়েক মৌসুম ধরেই সারা বিশ্ব থেকে প্রতিভাবান তরুণদের দলে নেয়ার বিষয়ে রিয়েলকে দেখা যাচ্ছে অগ্রগামী ভুমিকায় । রিয়েলের তরুণ ফুটবলারদের মধ্যে আছেন ভিনিসিয়াস , রেনিয়ের জেসুস , রড্রিগো , তাকেফুসা কুবো , ফেডে ভেলভার্দে , মার্টিন ওদেগার্ড , এন্ডিরি লুনিন , মার্কো এসেন্সিও , ব্রাহিম ডায়াজ , ড্যানি সেবালোস , জেসুস ভালেজ্জোসহ অনেকেই । এদের মধ্যে অনেকেই খেলছে অন্যান্য দলে , ধারে । যারা সাফল্য দেখালে মুল রিয়েল স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন । আবার ইতোমধ্যেই ভিনিসিয়াস জুনিয়র , মার্কো এসেন্সিও আর ব্রাহিম ডায়াজরা খেলছেন মুল দলেই ।

এই ফুটবলারদের কেউই কিন্তু রিয়েলের একাডেমী দল থেকে উঠে আসা নয় । তাদেরকে অনেকটা পরিনত বয়সে কিনেছে রিয়েল । অথচ রিয়েল শিবিরেই ছোট থেকে বেড়ে ওঠা এক রত্ন আছেন হাকিমি , যার প্রতি সুবিচার কখনই করা হয় নি । রিয়েলের জুনিয়র দল থেকে উঠে আসা হাকিমি সিনিয়র দলে সেভাবে সুযোগ পান নি কখনই । ২০১৭ সাল থেকে খেলেছেন মাত্র নয়টি লীগ ম্যাচ ! আর সব মিলিয়ে খেলার সুযোগ পেয়েছেন ১৭টি ম্যাচে ।

অথচ ২০১৮ সালে ধারে বুরুশিয়া ডর্টমুণ্ডের হয়ে ঠিকই জাত চেনাচ্ছেন হাকিমি । জার্মানির জায়ান্টদের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে খেলছেন ৭৩ ম্যাচ । বুরুশিয়ার মত দলে নিয়মিত আলো ছড়িয়ে যাওয়া হাকিমি আবার ঠিকানা বদলে যাচ্ছেন ইন্টারে , তবে এবার পাকাপাকিভাবে ।

মাত্র আট বছর বয়সে রিয়েলে যোগ দেয়া হাকিমির শুরুটা হয়েছিল রাইট ব্যাক হিসেবে । কিন্তু তিনি রাইট উইঙ্গার এমনকি লেফট ব্যাক হিসেবেও দারুণ দক্ষ । বুরুশিয়ার জার্সিতে ইতোমধ্যে ইউরোপের অন্যতম সেরা রাইট ব্যাক কাম উইঙ্গার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন হাকিমি ।

২০১৯-২০ মৌসুমে বুরুশিয়ার হয়ে সব মিলিয়ে ৪৫ ম্যাচে খেলে নয়টি গোল করেছেন আশরাফ হাকিমি । এসিস্ট আছে ১০টি । চ্যাম্পিয়ন্স লীগে খেলা কোন দলের রাইট ব্যাকের এমন পারফর্মেন্স চলতি মৌসুমে আর নেই । রিয়েল মাদ্রিদে একই পজিশনে থাকা ড্যানি কারবাহাল পুরো মৌসুমে সাকুল্যে পেয়েছেন একটি গোলের দেখা !

২৮ বছর বয়সী কারবাহালের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাচ্ছে রিয়েল , এটা ঠিক । কারবাহালও আশরাফের মত উঠে এসেছেন রিয়েল ক্যাস্টিলা অর্থাৎ একাডেমী দল থেকে । কিন্তু কারবাহাল যে সুযোগ পেয়েছেন , আশরাফ হাকিমিকে সেই সুযোগ দেয় নি রিয়েল ।

স্প্যানিশ মিডিয়ার তথ্য বলছে আপাতত দলে মার্সেলো, দানি কারভাহাল, ফার্লড মেন্ডিদের মতো ফুলব্যাক থাকায় তাকে দলে ফেরানোর ইচ্ছা ছিল না রিয়ালের। তাই তাকে বিক্রি করে দিচ্ছে ইন্টারের কাছে , যাকে রিয়েলের বড় ধরণের ‘ভুল’ বলছে স্প্যানিশ মিডিয়া ।

রিয়েল আসলেই ‘ভুল’ করছে কিনা সেটা আগামীতেই বোঝা যাবে । ২১ বছরের হাকিমি আগামীতে ইন্টারের হয়ে দারুণ কিছু করলে রিয়েল হয়ত নিজেদের ভুল বুঝতে পারবে । যে ক্ষমতা হাকিমির আছে ।

২০১৯ সালে গ্লোব সকার এ্যাওয়ার্ডে ‘ইউথ আরব প্লেয়ার অফ দা ইয়ার’ হয়েছেন হাকিমি । খেলেছেন নিজ দেশ মরক্কোর হয়ে ২৮ আন্তর্জাতিক ম্যাচ । সেখানেও তার গোল আছে দুইটি ।

মা-বাবা মরক্কোর হলেও আশরাফ হাকিমির জন্ম অবশ্য স্পেনের মাদ্রিদে ।

আহাস/ক্রী/০০৩