Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

আইপিএলের আগেই ভারতের টি-২০ সিরিজ

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

করোনা মহামারীর কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সব ধরণের বৈশ্বিক খেলাধুলার আসর । যদিও জার্মানির বুন্দেস লীগা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া টি-২০ আসর দিয়ে ইতোমধ্যেই আবারও ফিরে আসতে শুরু করেছে ক্রীড়াঙ্গনের প্রাণচাঞ্চল্য । আগামী মাসেই দীর্ঘ তিনমাসের স্থবিরতা কাটিয়ে মাঠে ফেরার কথা রয়েছে ইংল্যান্ড , স্পেন আর ইটালির ফুটবল লীগ । যা ক্রীড়ামোদীদের জন্য দারুণ সুখবর ।

ইউরোপে ধীরে ধীরে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় নেয়া হচ্ছে লক ডাউন তুলে নেয়াসহ খেলাধুলায় ফেরার সিদ্ধান্ত । কিন্তু বিশ্বের অন্যান্য অংশের অবস্থা ভিন্ন । বর্তমানে ল্যাটিন আমেরিকা আর দক্ষিণ এশিয়ায় করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ বাড়ছে । বাড়ার সম্ভাবনার কথা বলা হচ্ছে আফ্রিকা মহাদেশেও । এমন পরিস্থিতিতে এসব অঞ্চলে পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে বলা যাচ্ছে না কিছুই ।

ভারতের করোনা পরস্থিতি এখনও খুব বেশী উন্নত না হওয়ায় সেখানে চলছে লক ডাউন । যদিও সরকারীভাবে তা ধীরে ধীরে শিথিল করার চেষ্টা চলছে । চেষ্টা চলছে খেলাধুলার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার । ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) চাইছে , ক্রিকেটারদের অনুশীলনে ফেরাতে ।

এর মধ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড (সিএসএ) জানিয়েছে , আগামী আগস্টে ভারত রাজী হয়েছে আফ্রিকা সফরে ! যেখানে স্বাগতিকদের সাথে তিনটি টি-২০ ম্যাচ খেলতে পারে টিম ইন্ডিয়া ।

বুধবার (২০ মে) দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডের এক্সিকিউটিভ জ্যাক ফাউল জানান ,’বিসিসিআই’র এর সঙ্গে আমাদের ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে। আমরা আমাদের স্পোর্টস এন্ড অলিম্পিক কমিটির (SASCOC) এবং মন্ত্রীর মাধ্যমে গোটা বিষয়টি আলোচনার চেষ্টা চালাচ্ছি। যদি দর্শক প্রবেশের অনুমতি না মেলে সেক্ষেত্রে ফাঁকা স্টেডিয়ামে ম্যাচ করার ব্যাপারে অনুমতি পাওয়ার চেষ্টা করছি। ‘

চলতি বছরের মার্চ মাসে গোড়ার দিকে ভারতে তিনটি একদিনের ম্যাচের সিরিজ খেলতে এসেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল। ধর্মশালায় প্রথম ম্যাচ বৃষ্টির জন্য ভেস্তে যায়। এরপর করোনা আতঙ্কে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ম্যাচটি বাতিল করে দেয় বিসিসিআই ও দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। ফলে দেশে ফিরে যান ডু প্লেসিস-ডি’ককরা। দেশে ফিরে নিয়মমতো ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনেও যান প্রোটিয়া ক্রিকেটাররা। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার কোনও ক্রিকেটারের করোনা সংক্রমণের কোনও লক্ষণ দেখা যায়নি। পরীক্ষার ফলও নেগেটিভ আসে। এছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকার সার্বিক করোনা পরিস্থিতি মাত্রা ছাড়ায় নি ।

জানা গেছে , ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর গ্রায়েম স্মিথের মধ্যে গত ফেব্রুয়ারিতে এ বিষয়ে প্রাথমিক আলোচনা হয়। এরপর বুধবার সিরিজ আয়োজনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত হয় দুই বোর্ড। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে খবরটি নিশ্চিত করেন চিফ এক্সিকিউটিভ জ্যাক ফল।

যদিও জ্যাক জানিয়েছেন , ‘দুই বোর্ড রাজী হলেও বিষয়টি এখন চূড়ান্ত নয় । কারণ এই সফরের জন্য প্রয়োজন দুই দেশের সরকারের অনুমতি । ‘

সিরিজটা আয়োজন করা সম্ভবপর হলে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কাছে এই সিরিজ গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে বলে জানিয়েছেন জ্যাক ফল । পাশাপাশি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সদিচ্ছা তাঁদের সিরিজ আয়োজনে আরও উদ্যোগী করে তুলেছে বলে অভিমত তার ।

বিসিসিআই এই দ্বিপাক্ষিক সিরিজে সম্মত হওয়ার অর্থ এটাও হতে পারে যে, তারা টি২০ বিশ্বকাপের পরিবর্তে অক্টোবরে-নভেম্বর উইন্ডোয় আইপিএল আয়োজন করতে চাইলে তাদের সিএসএর সমর্থন পেতে অসুবিধে হবে না।

শেষবার ২০১৮ দক্ষিণ আফ্রিকায় ৩টি টেস্ট, ৬টি ওয়ানডে এবং ৩টি টি২০ ম্যাচ খেলেছিল ভারত।

আহাস/ক্রী/০০২