Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

১বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন আরও দুই টাইগার

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

বাংলাদেশের ক্রিকেটে এখন চলছে দারুণ দুঃসময় । খেলার মাঠে বাজে পারফরমেন্স তো আছেই , সাথে যোগ হচ্ছে মাঠের বাইরের একের পর এক নেতিবাচক ঘটনা । সর্বপ্রথম জুয়াড়িদের সাথে যোগাযোগের ঘটনা গোপন করায় এক বছরের জন্য আইসিসি কর্তৃক নিষিদ্ধ হলেন সাকিব আল হাসান । যা বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য ছিল বিশাল বড় এক ধাক্কা ।

সাকিবের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এনসিএলে (জাতীয় ক্রিকেট লীগ) সতীর্থর গায়ে হাত তুলে নিষিদ্ধ হয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক পেসার শাহাদাৎ হোসেন । তাকে সাজা দিয়েছে বিসিবি’র (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড) ডিসিপ্লিনারি কমিটি । শোনা যাচ্ছে , ডোপ টেস্টে ধরা পড়ে নিষিদ্ধ হতে পারেন তরুণ অল রাউন্ডার কাজী আনিক ।

এদিকে শাহাদাৎ হোসেনের সাথে বিবাদে জড়িয়ে রেহাই পান নি আরাফাত সানি জুনিয়র আর মোহাম্মদ শহীদ । খেলা চলাকালীন মাঠে মারামারির দায়ে তাদেরকেও সাজা দিয়েছে বিসিবি । এই দুই ক্রিকেটারকেই দেওয়া হচ্ছে এক বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। এই সময়ে তারা খেলা চালিয়ে যেতে পারবেন। তবে আর কোন শৃঙ্খলাভঙ্গ করলে সঙ্গে সঙ্গেই কার্যকর হবে নিষেধাজ্ঞা।

গেল ১৭ নভেম্বর খুলনায় জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) ম্যাচে বল ঘষে উজ্জ্বল করা নিয়ে ক্রিকেটার ত্রয়ীর কথা কাটাকাটি হয়।এর জের ধরে অফস্পিনিং অলরাউন্ডার সানিকে মাঠেই চড়-থাপ্পড় মারেন শাহাদাত। সতীর্থরা একরকম জোর করে তাকে মাঠের বাইরে নিয়ে যান।

আচরণবিধি লেভেল ৪ ভঙ্গ করায় ম্যাচের শেষ দুই দিন শাহাদাতকে বহিষ্কার করেন ম্যাচ রেফারি। পরে বোর্ডের টেকনিক্যাল কমিটি তাকে লেভেল-৪ মানের অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় ৩ লক্ষ টাকা জরিমানার পাশাপাশি তিন বছরের নিষেধাজ্ঞা দেন । এছাড়া তার জন্য আছে স্থগিত আরও দুই বছরের নিষেধাজ্ঞাও।

এরপর ম্যাচ রেফারির প্রতিবেদন থেকেই জানা যায়, ঘটনার সূত্রপাত ঘটান পেসার শহীদ। তিনিই প্রথম ঝামেলা বাঁধান সানির সঙ্গে। এজন্যই তাকে শাস্তি দেয়া হয়েছে।

আর সানির ভূমিকা নিয়ে এতদিন প্রশ্ন না উঠলেও শুনানিতে ডাকার পর দায় পাওয়া যায়। যে কারণে শাস্তির হাত থেকে রেহাই পাননি উঠতি ক্রিকেটারও।

টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন বলেন, আগামী ১ বছর মাঠের পাশাপাশি শহীদ-সানির বাইরের আচরণও কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হবে।

আহাস/ক্রী/০০২