Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

হারতেই হয়েছে বাংলাদেশকে

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

সকাল থেকে চট্টগ্রামের বৃষ্টি আশা জাগিয়েছিল বাংলাদেশ শিবিরে । কিন্তু সেই আশা শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত রুপ পায় নি । বৃষ্টি থামার সুযোগে যেটুকু খেলা হয়েছে , তাতেই বাংলাদেশকে ২২৪ রানে হারের লজ্জায় ডুবিয়েছে আফগানিস্তান ।

সোমবার শেষ বিকেলে মাত্র এক ঘণ্টা ২০ মিনিট খেলা হয়েছে । তাতেই বাংলাদেশের শেষ চার উইকেট নেই । অর্থাৎ দ্বিতীয়বার অল আউট টাইগাররা । অথচ খেলা যখন শুরু হয় তখন সারাদিনের বৃষ্টিতে সমীকরণ বেশ সহজ হয়ে গিয়েছিল । খেলা হবে মাত্রল ১৮.৩ ওভার। হাতে ৪ উইকেট। সাকিব আল হাসান এবং সৌম্য সরকার। টাইগার ভক্তরা ভেবেছিল অনায়াসেই হয়তো এই কয়টা ওভার কাটিয়ে দিতে পারবেন সাকিব-সৌম্য।

কিন্তু পারলেন না তারা। আর মাত্র ১০ মিনিট টিকতে পারলেই ম্যাচ ড্র। কিংবা আর মাত্র ৩ ওভারেরও কম। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা পারলেন না। ২২৪ রানের বিশাল পরাজয়ের লজ্জাই বরণ করতে হলো টাইগারদের। বাংলাদেশে এসে অবিস্মরণীয় এক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লো আফগানিস্তান।

আফগানিস্তানের অধিনায়ক রশিদ খান প্রথম ইনিংসে নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট । দ্বিতীয় ইনিংসে পেলেন আরও ছয়টি । সব মিলিয়ে ১১ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা তিনি ।

রবিবার খেলা চতুর্থ দিনের শেষেই তিনি বলেছিলেন , এক ঘন্টা সময় পেলেই মায়চ জিতবে আফগানিস্তান । সেই কথা তিনি রেখেছেন ।

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনই টস নামক ভাগ্যে জয় এসেছিল আফগানিস্তানের। টস জিতেই ব্যাট করতে নামে আফগানরা। বাংলাদেশের বোলারদের কাঁচকলা দেখিয়ে প্রথম ইনিংসে তারা সংগ্রহ করে ৩৪২ রান। সেঞ্চুরি করেন রহমত শাহ। আসগর আফগান ৯২ এবং রশিদ খান করেন হাফ সেঞ্চুরি।

জবাব দিতে নেমে মাত্র ২০৫ রানে অলআউট বাংলাদেশ। যে উইকেট আফগানরা ব্যাটিং করার সময় দেখা যাচ্ছিল পুরোপুরি ব্যাটিং বান্ধব, সেই উইকেটই কি না বাংলাদেশের সামনে হয়ে পড়লো বোলিং বান্ধব। আফগান স্পিনার রশিদ খান, মোহাম্মদ নবি কিংবা জহির খানদের মোকাবেলা করে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা উইকেট হারিয়েছে অকাতরে।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে আবারও উইকেট হয়ে গেলো ব্যাটিং বান্ধব। আফগানরা এবার তুললো ২৬০ রান। আফগানদের মোট লিড দাঁড়ালো ৩৯৭। জয়ের জন্য ৩৯৮ রানের লক্ষ্যে খেল নেমে চতুর্থ দিন ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলে বৃষ্টির কল্যাণে কয়েক ওভার খেলা কম হওয়ায় চতুর্থ দিনে আর ম্যাচ শেষ হলো না।

গড়ালো পঞ্চম দিনে। আজ সারাদিন তো বৃষ্টির এমন অবস্থা বারবার মনে করিয়ে দিচ্ছিল, ম্যাচই হবে না কিন্তু শেষ বিকেলে এসে মাত্র ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট সময় পেয়েই বাজিমাত করে দিল আফগানরা। বাংলাদেশকে অলআউট করে দিলো ১৭৩ রানে।

সাকিব আল হাসান আউট হওয়ার পর মেহেদী হাসান মিরাজ মাঠে নামেন ২৮ বল মোকাবেলা করে এলবিডব্লিউর শিকার হন ১২ রান করে। তাইজুল তো রানের খাতাই খুলতে পারেননি। সৌম্য আউট হলেন শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ১৫ রান করে।

রশিদ খান একাই নিলেন ৬ উইকেট। দুই ইনিংস মিলে ১১ উইকেট। নিজের প্রথম অধিনায়কত্বে প্রথম ম্যাচেই জয় উপহার দিলেন তিনি। একই সঙ্গে মোহাম্মদ নবিকে দিলেন বিদায়ী উপহার। রশিদ খান ছাড়াও ৩ উইকেট নেন জহির খান।

আহাস/ক্রী/০০৮