Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

আফগানিস্তান টেস্ট নিয়ে হতাশ বিসিবি সভাপতি

ক্রীড়ালোক প্রতিবেদকঃ

মাত্র কিছুদিন আগেইঁ টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়া আফগানিস্তানের কাছে নাকাল হচ্ছে বাংলাদেশ । চট্টগ্রামে দুই দলের মধ্যে চলমান টেস্টে বাংলাদেশের পরাজয় অনেকটাই নিশ্চিত । প্রকৃতির সাহায্য ছাড়া এই টেস্ট বাঁচানো বাংলাদেশের জন্য প্রায় অসম্ভব ব্যাপার । আর সেই প্রকৃতির বদান্যতায় বাংলাদেশ বেঁচে গেলে সেটা হবে আফগানিস্তানের জন্য দুর্ভাগ্যের ।

অথচ বাংলাদেশে খেলতে আসার আগে আফগানিস্তানের অভিজ্ঞতা বলতে ছিল মাত্র দুইটি টেস্ট । যেখানে বাংলাদেশ গত দেড় যুগের বেশী সময়ে খেলেছে শতাধিক টেস্ট । ফলে এই একমাত্র টেস্টের সিরিজে বাংলাদেশের বিপক্ষে আফগানদের কোন সুযোগ দেখেন নি কেউ । কিন্তু মাঠের খেলা শুরু হতেই পাল্টে গেছে পুরো পরিস্থিতি । এখন বাংলাদেশ নয় , জয়ের উল্লাসে মাতার অপেক্ষায় আফগানিস্তান ।

এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে আফগানদের ৩৪২ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০৫ রানে অলআউট হয় টাইগাররা। ১৩৭ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রান করে অলআউট হয় রশিদ খানের নেতৃত্বাধীন আফগানিস্তান।

৩৯৮ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে রোববার চতুর্থ দিনে ১৩৬ রান সংগ্রহ করতেই ৬ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে জিততে হলে বাংলাদেশের আরও প্রয়োজন ২৬২ রান, হাতে রয়েছে চার উইকেট। চতুর্থ দিন শেষে অপরাজিত রয়েছেন সাকিব ও সৌম্য। ম্যাচের যা অবস্থা , তাতে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান নিজেও সব আশা ছেড়ে তাকিয়ে আছেন আকাশের দিকে ।

এদিকে বাংলাদেশের পারফর্মেন্সে দারুণ ক্ষুব্ধ বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন । তিনি জানিয়েছেন , ‘ ‘ভেবেছিলাম চট্টগ্রামে যাব। কিন্তু খেলা দেখে এতটাই হতাশ হয়েছি যে যাওয়ার ইচ্ছাই বাদ দিয়ে দিয়েছি। ’

টাইগারদের পরিকল্পনায় ভুল ছিল মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘পরিকল্পনাতো নিশ্চয়ই ছিল কিন্তু সেটা সঠিক ছিল না বলেই মনে করি। ওদের সঙ্গে বসতে হবে। বুঝতে হবে, কেন এমন হল।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে করে পাপন বলেন, ‘আফগানিস্তান যদি ৩০০ করে, আমাদের ৫০০ না করার তো কোনো কারণ নেই। এমন ফ্ল্যাট উইকেটে আমার ধারণা ছিল মুশফিক, সাকিব, রিয়াদ, মুমিনুলরা সেঞ্চুরি করবে। এই উইকেটেই তো সেঞ্চুরি করেছে আফগানিস্তানের ক্রিকেটার। ওরা পারলে আমারা পারব না কেন?’

বাংলাদেশ কেন পারেনি সে ব্যাখ্যাও দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।তিনি বলেন, ‘প্রথম ইনিংস যদি আপনি দেখেন, সেট হয়ে যাওয়ার পর লিটন দাস যে শটটা খেলল, মুমিনুল পঞ্চাশ করার পর একশ’ দেড়শ’ করবে, সে হলো টেস্ট স্পেশালিস্ট, সে যে শটটা খেলল। রিয়াদ যে শটটা খেলল, তাকে টেস্ট খেলা বলে? ওদের এখন কি বুঝাতে হবে, টেস্ট কিভাবে খেলতে হয়।’

এ সময় আফগানদের ভূয়সী প্রশংসাও করেন নাজমুল হাসান। তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রামের ব্যাটিং উইকেটে আফগান ব্যাটসম্যানরা সফল। অথচ একই কন্ডিশনে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা আত্মসমর্পণ করেছে। এখানে কৃতিত্ব আফগানিস্তানেরই। নবীন হয়েও ওরা টেস্ট কীভাবে খেলতে হয় তা দেখাল। ওরাই টেস্ট মেজাজে খেলেছে। ওদের সেঞ্চুরি হয়েছে। বাকিরা ৮০-এর বেশি রান করেছে। আর সেখানে আমাদের সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহরা যদি ৫০ রানও না করতে পারে, তাহলে অন্তত টেস্টে জেতার কোনো সম্ভাবনা নেই।’

টাইগারর টেস্ট খেলছে বলে মনেই হয়নি বিসিবি সভাপতির কাছে।

এভাবেই চট্টগ্রাম টেস্টে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ব্যর্থতার কথা বলতে গিয়ে দল নির্বাচন, উইকেট বাছাই, এমনকি ক্রিকেটারদের টেস্ট খেলার সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বোর্ড সভাপতি।

তিনি পরে অবশ্য বলেছেন, যা চলে গেছে, তা নিয়ে চিন্তা করে লাভ নেই। সামনে টি-টোয়েন্টি আছে, সেটা নিয়ে নতুন করে পরিকল্পনা করতে হবে।

আসন্ন ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজে বড় পরিবর্তনের ইঙ্গিতও দিয়েছেন নাজমুল হাসান।

আহাস/ ক্রী/০০৫